অপমান জিনিসটা ভুলে যেওনা। জবাব দেওয়ার জন্য তৈরি হও। তবে সেটা এই ভাবে

Posted on

আসসালামু আলাইকুম সবাই কেমন আছেন…..? আশা করি সবাই ভালো আছেন । আমি আল্লাহর রহমতে ভালোই আছি ।আসলে কেউ ভালো না থাকলে TrickBD তে ভিজিট করেনা ।তাই আপনাকে TrickBD তে আসার জন্য ধন্যবাদ ।ভালো কিছু জানতে সবাই TrickBD এর সাথেই থাকুন ।

অপমান জিনিসটা ভুলে যেওনা

এই মায়াবীর পৃথিবীর বুকে সবাই সময়ের বন্ধু সময় হলে বুঝতে পারবেন এই পৃথিবীতে কেউ কারো নয়। সময়ের কাজ সময়ে করা উচিত একটা কথা মনে রেখ সময় আর জোয়ারে ঢেউ কারো জন্যই কিন্তু থেমে থাকে না। যোগ্যতা কম হলেই মানুষ অহংকার করে কারণ যোগ্য মানুষেরা কখনো অহংকার করে না বরং অন্য মানুষদের সাহায্য করে।

অপমান গুলো সহ্য করে হালকা হেসে বেরিয়ে আসতে হয় কারণ সময় একদিন ঠিক বুঝিয়ে দেবে ভুলটা ওদেরই ছিলো তোমার নয়।দিন বদলায় বদলে যায় মানুষের মন কেউ নিজের স্বার্থে দূরে সরে যায় কেউ ভালোবাসার টানে পিছু ফিরে চায়। কারো জন্য দুঃখের স্ট্যাটাস দিয়ে কি হবে যে তোমার মনে কথাই বঝলো না সে তোমার দু চার লাইনের স্ট্যাটাস দেখে কি বুঝবে।

যে মানুষটা রোজ তোমার অবহেলা গুলো চুপচাপ সহ্য করে আর তুমি দিনের-পর-দিন সহজেই তাকে ঠকিয়ে যাচ্ছ ভেবোনা তুমি জিতে যাচ্ছে আসলে তুমি তাকে হারিয়ে ফেলছে। এতটা পথ চলার পর যে সম্পর্ক তোমাকে ঘুমাতে দিচ্ছে না সেই সম্পর্ককেই ঘুমাতে দাও দেখবে নতুন ভোর পাবে। ক্ষমা চাইলে সব হয়না হৃদয়ে এসে আঘাত করা কথাগুলো সহজে ভোলা যায় না।

নিজের স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার সময় তুমি আরো অনেকের বাস্তব রূপ দেখতে পাবে। বন্ধুত্বের জন্য কোনো যোগ্য লোক খুজে না পেলে একা থাকো তবু ও অযোগ্য কারো সাথে বন্ধুত্ব করতে যেওনা।

বেকাপ অথবা ডিভোর্সি সেদিনই কমবে যেদিন পছন্দটা রুপ অথবা চাকরি দেখে নয় চরিত্র দেখে হবে। অপমান জিনিসটা ভুলে যেওনা জবাব দেওয়ার জন্য তৈরি হও তবে সেটা নিজের সাফল্যের মধ্যে দিয়ে। বেশি কথা বলা মানুষদেরও চারটি বৈশিষ্ট্য হয়ে থাকে।১. হতাশায় আছে ২. একতরফা স্বার্থ সন্ধানী মানুষ ৩. হতে পারে এটা তার ব্যক্তিগত অভ্যাস ৪. খুব সরল মনের মানুষ।

ধৈর্য ধরো মনকে শক্ত করো মনে রেখো সব সময় এক অবস্থায় থাকে না খারাপ সময়ের পরে ভালো সময় আসবে। দেহের ব্যথা থেকে মনের ব্যথা অনেক বেশি যন্ত্রণাদায়ক। জীবনে কখনো কারো উপর নির্ভর করো না কারণ প্রত্যেকে একদিন না একদিন বদলে যাবে নতুন কাউকে পেলে। উপরওলার আশীর্বাদে পাওয়া প্রত্যেকটা জিনিস নিয়ে সুখে থাকো কারণ উপর আলা ওটা দেন না যেটা তোমার ভালো লাগে উপরওয়ালা ওটা দেন যেটাতে তোমার ভালো হবে।

অতিরিক্ত চাহিদায় মানুষের পতন ডেকে আনে। কিছু সম্পর্ক এভাবে ভেঙ্গে যায় একজন কথা বলার জন্য অপেক্ষা করতে থাকে আর আরেকজনের ইচ্ছায় জাগে না। মুখে যাদের মধু ঝরে পিঠে তারাই ছুরি মারে। দেখতে সুন্দর তো অনেক পাওয়া যায় কিন্তু যাদের মনটা সুন্দর তাদেরকে কেবল ভাগ্য করে পাওয়া যায়। নদী সামনের দিকে বয়ে যায় ঠিক তেমনি জীবনকে নিয়ে সামনের দিকে ভেবো অতীতকে ভেবোনা।

মেয়েদের জীবন বাড়ি থেকে দেখাশোনা করে বিয়ে দেওয়ার পর যদি সংসার ভেঙে যায় তাহলে বলবে কি করবি বল তোর ভাগ্যই খারাপ আর নিজের পছন্দমতো বিয়ে করার পর যদি সংসার ভেঙে যায় তখন বলবে নিজে বেশি বুঝে গেছিলি ঠিক হয়েছে। আমাদের সমাজটা এরকম তাই নিজের মতো করে বাঁচো সমাজ তোমার চোখের জলের ভাগ কোনদিনও দিবেনা।

এই বিষয়টা বুঝে নাও মূর্খ তোমাকে বুঝতে পারবে না আর তুমিও কোনদিনও মূর্খ কে বোঝাতে পারবে না। যদি কেউ কোনদিন তোমার ছোট করতে চায় তবে ভেবে নিও তুমি তাদের যে অনেক উপরে আছে। খোলা চোখে তুমি তোমার মত জিনিস দেখতে পাবে আর বন্ধ চোখে তুমি মনের মত জিনিস দেখতে পাবে।

যে তোমায় নিয়ে হিংসা করছে তার কথা ভেবে হতাশায় জড়িও না সে তোমায় নিয়ে ইতিমধ্যেই এক আকাশ হতাশায় রয়েছে। কারো কাছ থেকে জোর করে সময় পাওয়া যায়না যার ইচ্ছা হবে সে শত ব্যস্ততার মাঝেও একটু সময় দেবে। স্বার্থ ফুরিয়ে যাওয়ার পর যে তোমার জীবন থেকে সরিয়ে দিয়েছে সে মারা গেছে। অল্প কথায় যে অনুভূতি বোঝে না তাকে রচনা লিখে দিলেও কোনো লাভ হবে না।

যে ব্যাক্তি কথায় কথায় রেগে যায় সেই ব্যক্তি নিজের কাছে বেশি ক্ষতিকর এবং যে ব্যাক্তি কথায় কথায় হাসে সেই ব্যক্তি অন্যের কাছে বেশি ক্ষতিকর। সম্পর্কের মধ্যে মিথ্যা বলা তখনই শুরু হয় যখন তৃতীয় ব্যক্তির আগমনে ঘটে। আপনি যার জন্য পুরো পৃথিবী ছেড়ে দেবেন স্বার্থ শেষ হলে সে আপনাকে ছেড়ে চলে যাবে।

এটা ভেবোনা কে কখন কেন কিভাবে কোথায় বদলে গেল শুধু ভেবে কি দিয়ে গেল আরকি শিখিয়ে দিয়ে গেল। শূন্যস্থান কখনো শূন্য থাকে না ধুলো দিয়ে হলেও একসময় পূর্ণ হয়ে যায়।

আশা করি সবাই সবকিছু বুঝতে পেরেছেন। কোথাও সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানাবেন অথবা ফেসবুকে জানাতে পারেন ফেসবুকে আমি


The post অপমান জিনিসটা ভুলে যেওনা। জবাব দেওয়ার জন্য তৈরি হও। তবে সেটা এই ভাবে appeared first on Trickbd.com.

Source:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *