গ্রামের লাভজনক ব্যবস্যার আইডিয়া

Posted on

হ্যালো বন্ধুরা আশা করি সকলে অনেক ভালো আছেন। আপনাদেরকে এই ওয়েবসাইটে স্বাগতম জানাই। আজকের পোস্ট এ আমি আপনাদের সাথে গ্রামীণ লাভজনক ব্যাবস্যা সম্পর্কে আলোচনা করবো।

সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা কোনটি

বর্তমানে অনেকেই বেকারত্বের শিকার হয়ে রয়েছেন। আর বেকারত্বের সব থেকে বড় অংশ এখন হলো গ্রাম এর মানুষ – জন। আর তাদের বেকারত্বের সব থেকে বড় কারণ হলো, তারা কি নিয়ে ব্যবসা করবেন সেটা ঠিক না করা বা কোন ব্যবসা টি করলে লাভ জনক হবে এটা নিয়ে চিন্তা, এবং কোন টি করতে গেলে পরে লোকসান হবে এটা নিয়ে চিন্তা, এবং কম টাকায় কোন লাভ জনক ও ভালো ব্যবসা হবে সেটা নিয়ে চিন্তায় থাকা।

আর এটা স্বাভাবিক, কারণ গ্রামে কখনো যে কোনো ব্যবসায় দ্বার করানো যায় না। গ্রামে ভালো ভাবে ব্যবসা দ্বার করানোর জন্য প্রয়োজন হয়। এমন ব্যবসা যা মানুষদের প্রয়োজন কিন্তু গ্রামে নেই, এমন ব্যবসা। এক কথায় বলা যায় ইউনিক ব্যবসা। আর এই সকল দিক চিন্তা করে অনেকেই নিজের ব্যবসা এখনো শুরু করতে পারেন নি।

আগে মানুষ শপিং, কেনাকাটা, আসবাবপত্র ক্রয়, ইলেকট্রনিক এর জিনিস পত্র ক্রয় সবই করতো মার্কেট, দোকান বা সো – রুম এ গিয়ে। কিন্তু এখন আর মতো দিন নেই বললেই চলে। আগে মানুষ কে যেখানে সব কিছুর জন্য ছুটতে হতো এদিক – ওদিকে, সেখানে এখন মানুষ সব কিছু নিজের হাতের স্মার্ট ফোন বা কাছে থাকা কম্পিউটার অথবা ল্যপটপ দিয়ে অনলাইন থেকে জিনিসপত্র অর্ডার দিয়ে দেয়। আবার আগে বিয়ে-শাদি ইত্যাদি সকল অনুষ্ঠানের মার্কেটের জন্য মানুষ রওনা দিতো শহরের বা গ্রামের মার্কেটের দিকে।

কিন্তু এখন আর সেই দিন নেই। এখন গ্রামের মানুষেরাও অনলাইনে জিনিস পত্র কিনতে অভ্যস্ত হয়ে গেছে। সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা কোনটি এই অনলাইন ব্যবসার মাধ্যমে যে মানুষের গ্রামের বাজারে অনেক ক্ষতি সাধন হয়েছে, তেমন কিন্তু নয়৷ কারণ এখনো প্রায় ৬০% মানুষ ই জিনিস পত্র কেনার আগে সেটা আগে দেখে নিতে পছন্দ করে যে সেটা কেমন। আর সেটা সম্ভব হয় একমাত্র বাজারে গিয়ে জিনিস টি কেনার সময়।

তাই এখনো মানুষ বাজারর গিয়েই জিনিস পত্র কিনতে পছন্দ করে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা কোনটি। আগে কার মানুষ জিনিস পত্র কেনার জন্য রওনা দিতো শহরের মার্কেটের দিকে, কিন্তু সময়ের বিব্রর্তনে মানুষ এখন গ্রাম বাজারের দিকেও অনেক টা ঝুকে পড়েছে যার কারণে গ্রাম বাজারেও অনেক ব্যবসা সফল ও লাভজনক ব্যবসার মুখ দেখছে। আর সেটা হয়েছে একমাত্র ইউনিক ব্যবসার জন্য।

তাই আপনি যদি আপনার এলাকার বা গ্রামের বাজারে একটি ব্যবসা করতে চান তাহলে আপনার জানতে হবে আপনার এলাকার বা গ্রামের মানুষদের কি জিনিস টি বেশি প্রয়োজন হয়। সেটা নিয়ে ভালো ভাবে যেনে সেই বিষয় নিয়ে আপনি নেমে পড়তে পারেন গ্রাম ব্যবসার জন্য। তো আজ আমি আপনাদের সামনে আলোচনা করবো গ্রামের কয়েকটি লাভজনক ব্যবসা নিয়ে। যা আপনার এলাকার ছোট বাজারেও করতে পারবেন। তাই দেরি না করে দেখে নেওয়া যাক গ্রামের ব্যবসার আইডিয়া গুলো।

গ্রামের সফল ও লাভজনক ব্যবসার আইডিয়া

সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা কোনটি গ্রামের ব্যবসার আইডিয়া এই সম্পর্কে আপনাদের মাঝে কিছু ব্যবসার আইডিয়া শেয়ার করবো যে ব্যবসা গুলো করে আপনি গ্রামের সফল ও লাভজনক ব্যবসার মুখ দেখতে পারবেন। তো চলুন নিম্নে দেখে নেওয়া যাক গ্রামীণ ব্যবসার আইডিয়া গুলোঃ

১. ফাস্টফুডের দোকান

বড় বড় মেট্রো শহরে দুই পা হাঁটলেই সামনে পরে ফাস্টফুডের দোকান। ছোট শহর ও বিশেষত গ্রামাঞ্চলে এই ফাস্টফুডের দোকান প্রতিযোগিতা মূলক এখনও অপেক্ষাকৃত কম। তাই এই ব্যবসার কথা ভাবা যেতে পারে। এটিও অল্প টাকায় ভাল ব্যবসা। দোকানঘর ভাড়া, বাসন পত্র, গ্যাস ইত্যাদি নিয়েই শুরু করে দিতে পারেন এই ব্যবসা। প্রাথমদিকে চাইনিজ ও মোগলাই খাবার দিয়েই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। কারণ এই দুইটি খাবার সকলের কাছেই পরিচিত ও সব থেকে বেশি ক্রয়কৃত ফাস্ট ফুড খাবার। পরে সময়ের সাথে সাথে ধীরে ধীরে অন্যান্য সব রকমের খাবার রাখতে পারেন

২. কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র

আজকের তথ্য ও প্রযুক্তির দিনে কম্পিউটার চালানোর দক্ষতা ছাড়া কোনো রকমের ভাল চাকরি পাওয়াই মুশকিল। গ্রাম অঞ্চলে এখনও ঘরে ঘরে কম্পিউটার না আসায় এই বিষয়টিতে তারা অনেক সময়ই পিছিয়ে পড়ে। গ্রামে একটি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র খুলে আপনি একদিকে যেমন তাদের শেখার সুযোগ করে দিতে পারবেন তেমনই নিজেও লাভ করতে পারবেন।

তবে এক্ষেত্রে ভাল প্রশিক্ষকের ব্যবস্থা করা গুরুত্বপূর্ণ। পাশাপাশি উপযুক্ত সংখ্যক কম্পিউটার কেনার জন্য বিনিয়োগ করতে হবে ও সরকারি রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করতে হবে।

৩. কোচিং ক্লাস

স্কুল ও কলেজে ছাত্রছাত্রী ও বিভিন্ন প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষায় সাফল্যের জন্য কোচিং ক্লাস খুলতে পারেন। দু-তিনটি ঘর ভাড়া করে শুরু করতে পারেন ব্যবসা। এলাকার শিক্ষক শিক্ষিকাদের পাশাপাশি বাইরে থেকে বিশেষজ্ঞদের এনেও ক্লাস করাতে পারেন। আপনার কোচিং ক্লাস থেকে পড়ে ছাত্রছাত্রীরা সাফল্য লাভ করলে ছাত্র ছাত্রীর ভিড় বাড়বে। ফলে আপনার ইনকাম ও আস্তে আস্তে বাড়তে থাকবে।

৪. রোগ নিরীক্ষণ কেন্দ্র

ব্লাড সুগার, থাইরয়েডের মতো সাধারণ রোগের রক্তপরীক্ষা করতেও গ্রামের মানুষকে সব সময় ই ছুটতে হয় শহরে। অথচ এই রোগীদের নিয়মিত রক্ত পরীক্ষা করাতে হয়। তাই আপনি যদি আপনার গ্রামেই একটি রোগ নিরীক্ষণ কেন্দ্র তৈরি করে নিতে পারেন তাহলে গ্রামের সকল মানুষ রোগ পরিক্ষা এর জন্য আপনার কাছেই আসবে। এবং আপনার ব্যাবসাও সাফল্যোর মুখ দেখতে পাবে। সাধারণ রোগের জন্য আপনার কেন্দ্রেই রক্ত পরীক্ষার ব্যবস্থা রাখুন আর বড় রোগের ক্ষেত্রে নমুনা সংগ্রহ করে শহরের বড় কোনও কেন্দ্র থেকে পরীক্ষা করিয়ে আনতে পারেন। সেই মতো কোনও বড় কেন্দ্রের সঙ্গে যোগাযোগ ও চুক্তি করে রাখুন।

৫. ওয়াইফাই এর ব্যবসা

আর একটি ব্যবসা খুব চমৎকারভাবে করতে পারেন। সেটি হল ওয়াইফাই এর ব্যবসা। গ্রামে প্রায় সবার হাতে হাতেই ফোন রয়েছে। আর গ্রামে সব থেকে একটি প্রব্লেম হল নেট একদমেই থাকে না। বেশিরভাগ গ্রামে 3G নেট তো দুরের কথা, 2G নেটও পাওয়া যায় না। তাই আপনি ওয়াই ফাই এর ব্যবসা করতে পারেন। বর্তমানে বাংলাদেশে অনেক কোম্পানী ও সরকারিভাবে বিটিসিএল এর মাধ্যমে ওয়াই-ফাই এর কমিশন এজেন্ট ও ডিলার নিয়োগ দিচ্ছে। আপনি যেখানে ভাল সুবিধা পাবেন সেখান থেকে নিয়ে ব্যবসা করবেন। তবে এই ব্যবসা টা একটু ব্যয়বহুল তাই আপনারা বন্ধুরা মিলে শেয়ারে এই ব্যবসা করতে পারেন।

এছাড়াও আরো অনেক গ্রাম ব্যবসা আছে যেগুলো করে আপনি গ্রামে সফল ও লাভজনক ব্যবসা করতে পারবেন। এখন আপনি নিজেই ভেবে দেখুন যে আপনি কি ব্যবসা করবেন।

The post গ্রামের লাভজনক ব্যবস্যার আইডিয়া appeared first on Trickbd.com.

Source:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *