ব্রাউজারে পাসওয়ার্ড সেইভ করে রাখার নিয়ম উপকারিতা ও অপকারিতা

Posted on

আমরা সবাই হয়তো স্মার্টফোন দিয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করি। আর যেহেতু স্মার্টফোন দিয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করি তাই আমাদের হয়তো অনেক অ্যাকাউন্ট থাকতে পারে আর সবগুলো অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড মনে রাখা খুবই কষ্টের ব্যপার। আজ আমি আপনাদেরকে দেখাতে চলেছি কীভাবে পাসওয়ার্ড মনে না রেখে ব্রাউজারের গুগল অ্যাকাউন্টে সেইভ করে রাখবেন। 

Benefit of save password in browser
পাসওয়ার্ড সেইভ 

 যেহেতু ব্রাউজার সহ গুগল অ্যাকাউন্টে জমা থাকবে সেহেতু কোনো অ্যাকাউন্টের লগইন পেইজে আসলেই সেগুলোর পাসওয়ার্ড ও ইউজারনেইম অটোমেটিক পূরন হয়ে যাবে। যদিও কখনো পাসওয়ার্ড ভুলে যান তখন আপনি আপনার গুগল অ্যাকাউন্ট থেকে সেগুলো জেনে নিতে পারবেন। ব্রাউজারে পাসওয়ার্ড সেইভ করে রাখার নিয়ম এবং উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে আপনাকে বিস্তারিত ধারনা দিবো।

পাসওয়ার্ড সেইভ করে রাখার উপকারিতাঃ

ব্রাউজারে মানে গুগল ক্রোমে পাসওয়ার্ড সংযুক্ত করা মাত্রই সেটি আপনার গুগল অ্যাকাউন্টে সেইভ হয় যায় যার ফলে যদি আপনি কখনে আপনার পাসওয়ার্ড ভুলে যান তবে আপনি আপনার গুগল অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড পেইজ থেকে জেনে নিতে পারবেন। আপনি যদি আপনার ফোন সাথে করে না নিয়ে যান তবে আপনি অন্যকেউর মোবাইল দিয়ে গুগল অ্যাকাউন্টে লগইন করে সহজেই আপনি আপনার কাঙ্কিত অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ডটি জেনে নিতে পারবেন। যদি আপনি গুগল ক্রোম ব্যবহার করেন তবে আপনি যে অ্যাকাউন্টে লগইন করতে চান সে অ্যাকাউন্টের লগইন পেইজে যাওয়া মাত্রই আপনাকে অটোমেটিক লগইন করে দিবে। সেক্ষেত্রে আপনাকে কষ্ট করে ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড টাইপ করতে হবে না। পাসওয়ার্ড সেইভ করে রাখার আরো একটি সুবিধা হচ্ছে জরুরি প্রয়োজনে আপনি এক ক্লিকেই অ্যাকাউন্টে লগ ইন করতে পারবেন এবং যেহেতু পাসওয়ার্ডটি গুগল অ্যাকাউন্টে জমা থাকবে তাই পাসওয়ার্ড ভুলে যাওয়ার হাত থেকে বাচবেন। উপরোক্ত সুবিধা গুলো ছাড়াও আরো অনেক সুবিধা থাকতে পারে। এবার আপনাদেরকে দেখাতে চলেছি পাসওয়ার্ড সেইভ করে রাখার অপকারিতা সমুহ।

অপকারিতাঃ

যেহেতু আপনি আপনার সকল অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড ব্রাউজারে সেইভ রাখবেন তাই পাসওয়ার্ড কখনো কখনো হ্যাক হতে পারে। তবে পাসওয়ার্ড হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে যখন আপনার ফোনের স্ক্রিনলক অন্যকেউ জেনে যাবে। মানে আপনি আপনার ফোনে স্ক্রিনলক দিলেন কিন্তু সে লকটি অনেকেই জানে মানে খুবই সাধারন লক দিলেন তথন কেউ যদি আপনার ফোন হাতে নেয় তখন সে ইচ্ছে করলে আপনার পাসওয়ার্ডটি জেনে নিতে পারবেন। আর এটি রক্ষার্তে আপনার ফোনটি কোনো দুষ্টু লোককে ব্যবহার করতে দিবেন না। যদিও দেন তবে ইন্টারনালভাবে আপনার ক্রোম ব্রাউজারটি লক করে দিন বা হাইড করে রাখুন যাতে আপনি ছাড়া অন্যকেই ক্রোমে ডুকে পাসওয়ার্ড জানতে না পারে। যেহেতু আপনার সকল অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড গুগল অ্যাকাউন্টে জমা থাকবে সেহেতু যদি গুগল অ্যাকাউন্ট অন্যকেউ নিয়ে নেয় তবে সে আপনার পাসওয়ার্ড জেনে যেতে পারে। আপনার পাসওয়ার্ড রক্ষার্তে আপনাকেই বেশি সচেতন হতে হবে।

কীভাবে পাসওয়ার্ড সেইভ করবেনঃ

প্রথমে আপনি আপনার ক্রোম ব্রাউজারে যার তারপর আপনি যে অ্যাকাউন্ট লগইন করতে চান সেই সাইটের লগইন পেইজে যান। তারপর লগইন করুন এবং লগইন সফল হলে আপনাকে আপনার অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড সেইভ করতে চাইবে। তখন আপনি ওকে করে দিবেন তবেই আপনার কাঙ্ক্ষিত অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ডটি সেইভ হয়ে যাবে। এবং আপনি যখন তখন আপনার পাসওয়ার্ডটি ব্যবহার করতে পারবেন।

উপসংহারঃ

আমি আপনাকে পাসওয়ার্ড সেইভ নিয়ে অনেক ধারনা দিতে চেষ্টা করেছি। আপনি অবশ্যই নিরভয়ে পাসওয়ার্ড সেইভ করবেন কারন আমি আরো অনেক আগে থেকেই পাসওয়ার্ড সেইভ করে আসছি এখনো কোনো সমস্যা হয়নি। পাসওয়ার্ড সেইভ করার পর অবশ্যই আপনি আপনার ফোন হ্যাকারদের হাতে থেকে দূরে রাখবেন এবং ক্রোম ব্রাউজারটি হাইড করে রাখবেন। আপনার গুগলের অ্যাকাউন্ট অন্য কাউকে ব্যবহার করতে দিবেন না। উপরোক্ত বিষয়গুলো বোঝতে কোনো সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানাতে পারেন। আর যদি টিউনটি আপনার ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের কাছে শেয়ার করবেন কারন গুরুত্বপূর্ণ সকল বিষয় আপনার বন্ধুদেরও জানা দরকার।

The post ব্রাউজারে পাসওয়ার্ড সেইভ করে রাখার নিয়ম উপকারিতা ও অপকারিতা appeared first on Trickbd.com.

Source:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *