ব্লগিং কেন করবেন । ব্লগিং এর সুবিধা 2021। ব্লগিং গাইডলাইন

Posted on

যদি আপনি একটি ব্লগ
বা ওয়েবসাইট তৈরি করে অর্থ উপার্জনের চিন্তা করছেন, তাহলে ব্লগ বা ওয়েবসাইট তৈরির আগে অবশ্যই ব্লগিং এর সুবিধা এবং ব্লগিং এর অসুবিধা সম্পর্কে জেনে নিন। আপনি নিশ্চয়ই জানেন যে ব্লগিং এর সুবিধা কি  এবং ব্লগিং এর অসুবিধা কি কি?

আজ আমাদের দেশে প্রতিভার অভাব নেই। শুধু তাদের চিনতে হবে। আপনার যদি লেখালেখি করার প্রতিভা থাকে, তাহলে ব্লগিং আপনার জন্য সবচেয়ে ভালো হবে । অন্য কথায় আমরা বলতে পারি যে এটি ব্লগিংয়ের সবচেয়ে বড় শর্ত যে আপনার নতুন কিছু লেখার ক্ষমতা আছে। আপনার ভাবনাগুলোকে কথায় প্রকাশ করার ক্ষমতা আপনার থাকুক।

আপনি যদি নতুন, বিনোদনমূলক, তথ্যবহুল, অনুপ্রেরণামূলক কিছু লিখতে পারেন, তাহলে ব্লগিংয়ের ক্ষেত্র আপনার জন্য ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আসুন এবং এই ক্ষেত্রে আপনার উদ্যোগ দেখান। নিজেকে প্রমাণ করূন.

আমি আপনাকে আবারও বলছি যে আপনার যদি নতুন কিছু লেখার ক্ষমতা থাকে তবে কেবল এই ক্ষেত্রে আসুন, অন্যথায় আপনি এই ক্ষেত্রে আপনার সময় নষ্ট করবেন। আপনি যদি এই ক্ষেত্রে লম্বা রেসের ঘোড়া হতে চান, তাহলে আপনাকে অবশ্যই লিখতে জানতে হবে।

ব্লগিংয়ের সুবিধা, ব্লগের অসুবিধা

আপনি যদি ব্লগিং করতে চান, তাহলে আজ আমরা আপনাকে বিস্তারিত বলছি ব্লগিং এর  সুবিধা কি? ব্লগ তৈরির অসুবিধা কি?

1. ব্লগিং এর উপকারিতা – নিজের মালিক হোন

ব্লগিং এর সবচেয়ে বড় সুবিধা হল আপনার উপর কোন চাপ নেই। অন্য কথায় আমরা বলতে পারি যে আপনি আপনার নিজের বস। যখন আপনি চান কাজ করুন, যখন আপনি চান না তখন কাজ করবেন না।

আপনি কোন চাকরিতে এত সুবিধা এবং স্বাধীনতা পেতে পারেন না। আপনি যখন একটি কাজ করছেন, তখন আপনাকে কাজ করতে হবে। আপনার একজনও আপনার বসের সামনে হাঁটছেন না। এর ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি যে ব্লগিং যেকোনো কাজের চেয়ে অনেক গুণ ভালো।

2. ব্লগিং এর উপকারিতা – ঘরে বসে অর্থ উপার্জন করুন

ব্লগিংয়ের দ্বিতীয় সবচেয়ে বড় সুবিধা হল আপনি ঘরে বসেও এই কাজটি করতে পারেন। আপনার কোথাও যাওয়ার দরকার নেই। বাড়ি থেকে কাজ করা আপনাকে অন্যরকম আরাম দেয়। আজ অনেক মানুষ আছেন যারা ঘরে বসে অর্থ উপার্জন করতে চান, কিন্তু তারা চাইলেও তা করতে পারেন না। ব্লগিং এই কাজটি সহজেই করতে পারে।

কে রোদ বা কঠোর শীতে কাজের জন্য বাড়ি ছেড়ে যেতে চায়? আমরা বাড়ির বাইরে যেতে বাধ্য। আপনি যদি ব্লগিং করেন তাহলে আপনার কোথাও যাওয়ার দরকার নেই। আপনি ঘরে বসে বসে এক কাপ চা অথবা কোল্ড ড্রিঙ্ক পান করে আরাম করে এই কাজটি করতে পারেন এবং অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

3.ব্লগের সুবিধা – যখনই ইচ্ছা ছুটি নিন
আমরা যখন কোনো কাজ করি, তখন আমাদের বসের কাছ থেকে ঘুরে বেড়ানোর জন্য কিছু অজুহাত দিতে হয়। কখনও কখনও আমাদের অজুহাত কাজ করে, কখনও কখনও তা করে না। আমাদের বন্ধুরা বেড়াতে বের হয় এবং আমরা ফেসবুকে আমাদের বন্ধুদের ছুটির ছবি পছন্দ করতে থাকি। ব্লগিং এর ক্ষেত্রে এমন হয় না।

আপনি যদি আপনার বন্ধু বা পরিবারের সাথে কোথাও ভ্রমণ করতে চান, তাহলে আপনাকে কারো অনুমতি নেওয়ার প্রয়োজন নেই। আপনি যেখানে খুশি সেখানে যেতে পারেন, যত দিন যেতে চান। এর মধ্যে, আপনি আপনার কাজও বন্ধ করতে পারেন। এইভাবে, এর মধ্যে কাজ বন্ধ করা আপনার উপার্জনকে প্রভাবিত করবে না।

4. ব্লগিং এর সুবিধা – কাজ না করার জন্যও টাকা নিন
আমরা যখন কোন চাকরি বা ব্যবসা করি, তখনই আমরা টাকা পাই যতক্ষণ আমরা কাজ করতে থাকি। কাজ না করার অর্থ হল – কাজ নেই, টাকা নেই। এক, আমাদের বেতন খুবই কম, যদি আমরা জোর করে কাজে যেতে না পারি, তাহলে এর টাকা আলাদা করে কেটে নেওয়া হয়।

ব্লগিং এর ক্ষেত্রে এমন হয় না। ব্লগিংয়ে, যদি আপনি এক মাস বা 2-4 মাস কাজ করতে না পারেন, তাহলে আপনি এর জন্য অর্থও পান। এমনকি আপনি ব্লগিং ছেড়ে দিলেও আপনি টাকা পাবেন। আমি এটাকে ব্লগিংয়ের একটি বড় সুবিধা মনে করি।

5. ব্লগিং এর সুবিধা – কোন খরচ নেই

আপনি যদি কোন কাজ না করে থাকেন তাহলে নিশ্চয়ই আপনি কোন না কোন ব্যবসার কথা ভাবছেন। যে কোন ব্যবসার জন্য লক্ষ লক্ষ টাকার প্রয়োজন। একজন সাধারণ মানুষের পক্ষে এত টাকা সংগ্রহ করা সম্ভব নয়। এমনকি যদি কোনোভাবে আমরা টাকা সংগ্রহ করে ব্যবসা শুরু করি, তাহলে আমাদের ব্যবসা চলবে কি হবে না তার নিশ্চয়তা নেই। যদি কোনো কারণে আমাদের ব্যবসা চলতে না পারে, তাহলে আমাদের রাস্তায় আসতে বেশি সময় লাগবে না।

ব্লগিং এর ক্ষেত্রে এমন হয় না। এতে আপনার কিছু বিনিয়োগ করার দরকার নেই। এটা শুনে আপনার নিশ্চয়ই অদ্ভুত লাগছে কিন্তু এটা সত্যি। আপনার ব্লগিং এ কিছু বিনিয়োগ করার দরকার নেই। আপনি বিনা বিনিয়োগে ব্লগিং থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করতে পারেন। বর্তমানে অনেক ব্লগার ব্লগিং থেকে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছেন।

6. ব্লগিং এর সুবিধা-সেলিব্রিটিদের মত সম্মান
আপনি যদি ব্লগিং করেন তাহলে আপনি একজন সেলিব্রেটির মত সম্মান পাবেন। অনেক নতুন ব্লগারদের জন্য, আপনি একজন সেলিব্রেটির থেকে কম নন। লোকেরা আপনাকে চোখের পাতায় লাগানোর চেষ্টা করে। মানুষ চায় যে আপনি তাদের সাথে একবার দেখা করুন।

আপনার প্রতিপত্তি এবং মর্যাদা উভয়ই সমাজে বৃদ্ধি পায়। আপনি শীঘ্রই মানুষের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠবেন। আপনি দেখতে পাবেন, যারা আপনার সাথে কখনো ব্যবহার করেনি তারা আপনার সাথে দেখা করার অজুহাত খুঁজছে। এই সবই ব্লগিং এর মাধ্যমে সম্ভব।

7. ব্লগ তৈরির উপকারিতা – লেখার উন্নতি

যেমনটি আমি আগেই বলেছি যে ব্লগিংয়ের জন্য প্রয়োজনীয় শর্তগুলির মধ্যে একটি হল – আপনার লিখতে পারার ক্রিয়েটিভিটি থাকা উচিত। আপনি যখন শুরুতে লেখেন, আপনার লেখায় সেই আঁটসাঁটতা থাকে না। ধীরে ধীরে আপনার লেখার উন্নতি হয়, এটি ব্লগিংয়ের বিস্ময়।

9. ব্লগের উপকারিতা – জ্ঞান বৃদ্ধি

ব্লগিং এমন একটি ক্ষেত্র যেখানে আমাদের সবসময় নতুন কিছু লিখতে হয়। নতুন বই লেখার জন্য আমাদের ক্রমাগত বই পড়তে হবে। আমাদের সব ধরনের সাহিত্য পড়তে হবে। আমাদের সমাজে আমাদের চারপাশে কী ঘটছে সে সম্পর্কেও আমাদের সচেতন হতে হবে। কোন কিছু লেখার আগে আমাদের তা বিশ্লেষণ করতে হবে। আপনাকে আপনার বিষয় নিয়ে ভাবতে হবে, আপনাকে মস্তিষ্কচর্চা করতে হবে। এটি আমাদের জ্ঞানের অভূতপূর্ব বৃদ্ধি ঘটায়।

আমরা সমাজে বসে যেকোনো বিষয়ে অর্থপূর্ণ বিতর্ক করতে পারি। আপনি আপনার ধারনা সেমিনার ইত্যাদিতে রাখতে পারেন। আমরা সমাজে উচ্চ মর্যাদা পাই। আমরা যে কোন প্লাটফর্মে আমাদের পয়েন্ট সঠিক ভাবে রাখতে পারি। এই সবই ব্লগিং এর মাধ্যমে সম্ভব।

10. ব্লগিং এর উপকারিতা – আপনার ধারনা প্রকাশ করুন

আমরা ব্লগিং এর মাধ্যমে আমাদের চিন্তা প্রকাশ করতে পারি। ব্লগিং একটি মাধ্যম যা আমাদের চিন্তাকে সমগ্র বিশ্বের সামনে রাখার স্বাধীনতা দেয়। আমরা একই সময়ে,  সকল মানুষের সামনে আমাদের কথা বলতে পারি। ব্লগিং এর মাধ্যমে আমরা নতুন মানুষের সাথে যোগাযোগ করতে পারি। আমরা আমাদের জ্ঞান মানুষের সাথে শেয়ার করতে পারি। অথবা আমরাও আমাদের পরিচয় গোপন করে এই কাজটি করতে পারি।

ব্লগিং এর অসুবিধা

ব্লগিং প্রায়ই অর্থ উপার্জনের একমাত্র মাধ্যম হিসাবে বিবেচিত হয়। অনেক নতুন ব্লগার ব্লগিং এর ক্ষেত্রে আসে এই ভেবে যে এর মধ্যে অনেক টাকা আছে। এই ধরনের ব্লগাররা বেশিদূর যেতে পারে না কারণ তাদের মূল লক্ষ্য অর্থ উপার্জন।

ব্লগিং থেকে অর্থ উপার্জন করা যায় এতে কোন সন্দেহ নেই। আজ মানুষ ব্লগিং থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা উপার্জন করছে।

খুব কম লোকই জানে যে আজ ব্লগাররা লক্ষ লক্ষ টাকা উপার্জন করছে, প্রাথমিকভাবে উদ্দেশ্য ছিল অর্থ উপার্জন করা নয়। তিনি ব্লগিং শুরু করেছিলেন কারণ এটি তার শখ ছিল। তিনি পছন্দ করতেন যে তিনি তার জ্ঞান এবং চিন্তা মানুষের সাথে ভাগ করতে পারেন, যাতে মানুষ কোথাও উপকৃত হতে পারে।

আজ আমাদের ব্লগিং এর একমাত্র উদ্দেশ্য রয়ে গেছে – অর্থ উপার্জন করা। আমরা ব্লগিং বেছে নিই কারণ আমাদেরও নির্দিষ্ট ব্লগারের মত মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করতে হয়। আমাদেরও রাতারাতি কোটিপতি হতে হয়েছে। এই ধরনের ব্লগারদের কী হবে, আপনি সহজেই অনুমান করতে পারেন।

এই ধরনের ব্লগারদের ব্লগিং ছেড়ে দিতে খুব বেশি সময় লাগে না। এই ধরনের ব্লগাররা মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা উপার্জন করতে সক্ষম হয় না কিন্তু তারা অবশ্যই হতাশ, হতাশ, বিচলিত এবং হতাশ হয়ে পড়ে। একই সময়ে, তিনি তার 4-6 মাসের মূল্যবান সময়ও হারান, যাতে তিনি কিছু করতে পারতেন।

আমি বলছি না যে আপনি ব্লগিং অবলম্বন করবেন না। ব্লগিং অর্থ উপার্জনের সেরা প্লাটফর্ম। আপনি অবশ্যই ব্লগিং অবলম্বন করেন, কিন্তু আপনার প্রথম উদ্দেশ্য অর্থ উপার্জন করা উচিত নয়। ব্লগিং আপনার শখ হওয়া উচিত, আপনার প্যাশন হওয়া উচিত। ব্লগিং তাদের জন্য ভালো হবে যদি  শুধুমাত্র অর্থ উপার্জনের জন্য আসা মানুষ ব্লগিং থেকে দূরে থাকে।

এটি ব্লগিং এর সবচেয়ে বড় অসুবিধা।

আশা করি আপনি জানতে পেরেছেন ব্লগিং এর সুবিধা কি এবং এর অসুবিধা কি কি? ব্লগের সুবিধা কি? ব্লগ তৈরির সুবিধা কি?

আপনি যদি আমাদের এই আটি্কেলটি পছন্দ করেন, তাহলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। যদি আপনার মনের মধ্যে ব্লগিং সম্পর্কিত কোন প্রশ্ন থাকে, তাহলে আপনি নীচে কমেন্ট করে আমাদের জিজ্ঞাসা করতে পারেন। আমরা অবশ্যই আপনাকে সাহায্য করব।

আমার ছোটো ব্লগ থেকে ঘুরে আসতে পারেন

The post ব্লগিং কেন করবেন । ব্লগিং এর সুবিধা 2021। ব্লগিং গাইডলাইন appeared first on Trickbd.com.

Source:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *