🔥🔥 Spider Man: No Way Home এর টিজারের বিস্তারিত বর্ণনা ও Marvel এর আপকামিং মুভির লিস্ট দেখে নিন এক নজরে! Marvel এর ফ্যান হলে অবশ্যই দেখুন! ⚡️⚡️

Posted on

আসসালামু আলাইকুম। আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমিও ভালো আছি।

ট্রিকবিডিতে মার্ভেল বা এমসিইউ ফ্যান যারা আছি তাদের অধিকাংশেরই একটা আলাদা হাইপ রয়েছে স্পাইডার ম্যান নো ওয়ে হোম মুভি নিয়ে। মার্ভেলের ফ্যান হিসেবে আমার ও আগ্রহ কম নয়। সম্প্রতি মুভির একটা টিজার রিলিজ হয়েছে ইউটিউবে। আজকে আমি সেই টিজার এর বিস্তারিত বর্ণনা, আমার ধারণা ও মার্ভেলের অন্যান্য আপকামিং মুভির লিস্ট নিয়ে হাজির হয়েছি। তো চলুন শুরু করা যাক।

প্রথমেই টিজার টি দেখে নিন।

Spider Man No Way Home Teaser (English)

Spider Man No Way Home Teaser (Hindi)

 

এবার চলুন রিভিউ শুরু করা যাক।

ট্রেইলারটা জবরদস্ত। প্রচুর পরিমাণে তথ্য লুকায়িত একটা ট্রেলার। ট্রেলার থেকে বেশ কিছু ব্যাপার জানা যায়, আবার অনেক প্রশ্ন থেকে যায়।

ফার ফ্রম হোমের পোস্ট ক্রেডিট সীনেই স্পাইডির আসল পরিচয় ফাস হয়ে যায় এবং খুনী তকমা পেয়ে যায় সে। এখান থেকেই নতুন স্পাইডারম্যানের কাহিনী শুরু হতে যাচ্ছে।

১। হাতকড়া পরা অবস্থায় পিটার কোন এক অফিসারের কাছে জবান বন্দী দিচ্ছে। এখানে আমরা সাদা শার্ট পরিহিত একজনকে দেখতে পায়। হতে পারে সে পিটারের উকিল। প্রশ্ন হচ্ছে কে সে? ট্রেলারে তার মাথাও দেখা যায় নি। হতে পারে ডেয়ারডেভিল। হয়তোবা মার্ভেল স্পাইডারম্যান দিয়ে ডেয়ারডেভিলকে সাম্নে আনবে।

২। পিটার ডক্টর স্ট্রেঞ্জ এর কাছে সাহায্যের জন্য যায়। কিন্তু স্যানক্টরিয়াম বরফে মোড়া কেন? অথচ বাইরের পরিবেশ ছিল রৌদ্রজ্বল।

৩। স্পেল কাস্ট করবার আগে ওং নিষেধ করে। তারপর ও স্পেল কাস্ট করে স্ট্রেঞ্জ। কাস্টিং এর সময় ৪ টা সার্কেল্ড রুন দেখা যায়। ৪ টা আলাদা ইউনিভার্স হবার সম্ভাবনা আছে। ভেনম, টবি, গারফিল্ড এবং মারভেল এর ইউনিভার্স। কিন্তু স্পেল কাস্টিং এর এক পর্যায়ে পিটার ওর মত বদল করে সে সময় স্ট্রেঞ্জ ওকে চুপ থাকতে বলে। মেবু এ সময় স্পেল ঠিক মত হয়ে ওঠে না ফলাফল ৪ টা ইউনিভার্স পরস্পর ওভারল্যাপ/ সংঘর্ষ এ লিপ্ত হয়। এর ফলে মাল্টিভার্স তৈরি হয়৷

৪। আলাদা আলাদা ইউনিভার্স মারভেলের স্যাক্রেড টাইমলাইনের সাথে মিলিত হওয়াই স্বাভাবিকতা বিচ্যুত হয়। ফলাফল ভিন্ন টাইমলাইনের স্পাইডি ভিলেন স্যাক্রেড লাইনে এসে উপস্থিত। এখন প্রশ্ন হচ্ছে ভিলেন আসতে পারলে হিরো কেনো পারবে না? ডক অক্টো তো এই পিটারের সাথে পরিচিত না।

৫। পিটারের নতুন একটা স্যুট দেখতে পাবো এ মুভিতে। যেটা তৈরি করে দিবে স্ট্রেঞ্জ। যেটা দিয়ে ম্যাজিক ব্যবহার করতে পারবে পিটার।

 

 

 

৬। একটা দৃশ্যে আমরা স্ট্রেঞ্জ আর স্পাইডির ফাইট দেখতে পাই। কি এমন হলো যে তাদের মধ্যে মারামারি লেগে গেলো। যেখানে স্ট্রেঞ্জ পিটারের এস্ট্রাল প্রোজেকশন করে সেখানে পিটার একটা বক্সের মধ্যে হাত দিতে চেষ্টা করে৷ হতে পারে মাল্টিভার্স থেকে আশা ভিলেইন গুলা কে স্ট্রেনজ ম্যানুপুলেট করার চেষ্টায় আছে স্ট্রেঞ্জ। কিন্তু পিটার ওদের নিজ নিজ টাইমলাইনে ফেরত পাঠাতে চায়। ব্যাপার হচ্ছে নিজ ঘরে ফেরত যাও বাছা ধনেরা। কিন্তু বাধ সাধে যথা সম্ভব স্ট্র্বঞ্জ। এজন্য টাইটেল নো ওয়ে হোম।

৭। টাইম স্টোন না থাকা সত্ত্বেও কেন স্টোন ক্যারিয়ার নিয়ে ঘুরছেন স্ট্রেঞ্জ সেটাও প্রশ্ন থেকে যায়। ইনফিনিটি ওয়ারে স্ট্রেঞ্জ টাইম স্টোনের সাহায্যে যেভাবে ভিন্ন টাইমলাইন দেখতে পারে ঠিক তেমন স্ট্যান্স নিতে দেখা যায় এখানে। তাহলে কি স্ট্রেঞ্জ স্টোন ছাড়াই টাইমলাইনে যেতে পারে?

মারভেল কমিক্স এও স্ট্রেনজ ফিশি ক্যারেকটার। ওর মতলব বোঝা কঠিন৷ কোন সিদ্ধান্ত নিলে তার পিছনে গভীর কোন কন্সপিরেসি কাজ করে। এক্ষেত্রেও বাদ যায় নি। মাল্টিভার্সের ব্যাপারে পিটারের চেয়েও বেশি অবশ্যই ডক্টর স্ট্রেঞ্জ জানে। পিটারকেও যদি স্ট্রেঞ্জ ম্যানুপুলেট করে আমি অবাক হব না।

এগুলা থিওরি মাত্র।

 

 

 

চলুন আরো গভীরে যাওয়া যাক।

মাল্টিভার্সের বদৌলতে অ্যাভেঞ্জার্সের মতো হাইপ ক্রিয়েট করে ফেলেছে স্পাইডারম্যান। ফলে, ফ্যান থিওরির ছড়াছড়ি। উঠে আসছে বেশ কিছু প্রশ্ন। যারা কমিক নার্ড তাদের জন্য এগুলো বেশ সহজ ব্যাপার, কিন্তু সাধারণ দর্শকদের জন্য ব্যাপারগুলো দুর্বোধ্য। অনেকে তাই জানতে গিয়ে ফ্যান থিওরির বিভ্রান্তিতে পড়ে যান। যেটা কমাতে হলে অফিশিয়াল ফুটেজ এবং ফ্যাক্ট ফলো করতে হবে।

স্পাইডারম্যান নিয়ে কথা বলার আগে, মাল্টিভার্স এবং ভ্যারিয়েন্টের আলাপটা জরুরি। বলা হয়ে থাকে, আমাদের এই বিশাল ইউনিভার্স বা মহাবিশ্বের মতোই মতোই সমান্তরাল বেশ কিছু মহাবিশ্ব রয়েছে। অর্থাৎ, বিশ্বজগতের কোথাও ঠিক এমন একটি মহাবিশ্ব আছে যেখানে আমাদের মতোই সৌরজগত আছে। একে বলে প্যারালাল ইউনিভার্স। আর একাধিক প্যারালাল ইউনিভার্সের সমষ্টিকে বলা হয় মাল্টিভার্স। এই মাল্টিভার্সের মাঝে আমাদের পৃথিবীর মতোই পৃথিবী আছে। বোঝার সুবিধার জন্য কমিকবুকে এই পৃথিবীগুলোকে নাম্বারিং করা হয়। এই পৃথিবীগুলোতে হয়তো আমাদের হুবুহু কিংবা ডিফারেন্ট ভার্শন আছে। হয়তো তাঁরাও এখন মাল্টিভার্স থিওরি নিয়ে আলোচনা করছে। এই ডিফারেন্ট ভার্শনগুলোকে বলা হয় ভ্যারিয়েন্ট। “লোকি” সিরিজে এই ভ্যারিয়েন্টদেরই দেখানো হয়েছে।

আমরা এখন আছি টুয়েন্টি ফার্স্ট সেঞ্চুরির দুনিয়ায় আর লোকি সিরিজে “হি হু রিমেইন্স” বা “ক্যাং দ্য কংকারর” নামের যে সুপারভিলেনকে দেখানো হয়েছে তাঁর আগমন থার্টি ফার্স্ট সেঞ্চুরির দুনিয়া থেকে। অর্থাৎ, সে আমাদের দুনিয়ার ভবিষ্যৎ থেকেই এসেছে। ক্যাং একজন সায়েন্টিস্ট। তাঁর কোনো সুপারন্যাচারাল পাওয়ার নেই। তবে সে জিনিয়াস পর্যায়ের ইন্টেলেকচুয়াল। তাঁর মূল মুন্সিয়ানা হচ্ছে সে ভয়াবহ রকমের টেকনোলজিকালি অ্যাডভান্সড এবং ট্যাক্টিকাল কম্ব্যাটে পারদর্শী। পাশাপাশি টাইম ট্রাভেল করতে সক্ষম, সে তাঁর নিজের টেকনোলজি দিয়ে অন্যন্য টেকনোলজি কন্ট্রোল করতে পারে। এছাড়া যেকোনো রেডিয়েশন রেজিস্ট করতে পারে, হাইলি টেক অ্যাডাভন্সড ব্যাটেল আর্মরও আছে তাঁর। নিজের শক্তি বর্ধন করা থেকে শুরু করে, হলোগ্রাফিক ইমেজ, এবং ফোর্স ফিল্ড প্রোজেকশনও করতে পারে।

 

 

 

তো এই ক্যাং মহাশয় এর মূল ভার্শন তাঁর বুদ্ধিমত্তা দিয়ে মাল্টিভার্সের অস্তিত্ব খুঁজে বের করে এবং নিজের ভ্যারিয়েন্টদের সাথে যোগাযোগ করে। এবং সেখানেই গন্ডগোলটা বাঁধায়। কারণ, মাল্টিভার্স খুঁজে বের করা আর ম্যানুপুলেট করার মাঝে পার্থক্যটা অনেক। আর এভাবেই সে তাঁর ভয়ঙ্কর ভ্যারিয়েন্টদের সুযোগ করে দেয় মাল্টিভার্সের বারোটা বাজানোর। এর মধ্যে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ভ্যারিয়েন্টটা পুরো মাল্টিভার্সের দখল নেয়ার চেষ্টা করে। সম্ভবত লোকি সিরিজের দ্বিতীয় সিজনে এবং অ্যান্টম্যান অ্যান্ড দ্য ওয়াস্প কোয়ান্টামেনিয়ায় আমরা ক্যাং এর ঐ ভয়ঙ্কর ভ্যারিয়েন্টের দেখা পাবো।

মাল্টিভার্স নিয়ে গন্ডগোলটা বাঁধানোর পর, ক্যাং এর মূল ভার্শনের বোধদয় হয়। সে অনেকটা অপরাধবোধ থেকেই নিজের অ্যাভান্টেজগুলো কাজে লাগিয়ে “টাইম ভ্যারিয়েন্স অথোরিটি (টিভিএ)” গঠন করে এবং “স্যাক্রেড টাইমলাইন” মেইনটেইন করে। এখানে “স্যাক্রেড” এবং “সিক্রেট” এর পার্থক্যটা জানা দরকার। সিক্রেট হচ্ছে গোপন আর স্যাক্রেড হচ্ছে পবিত্র। আর এই স্যাক্রেড টাইমলাইন ছাড়া কোনোকিছুতে ক্যাং ইটারফেয়ার করে না। ক্যাং তখনোই ইন্টারফেয়ার করে যখন কোনো নেক্সাস ইভেন্ট ঘটে। যেই ইভেন্টের ফলে অনাকাংখিত টাইমলাইনের সৃষ্টি হয়, সেটাকেই ক্যাং থামায়। যেমন অ্যাভেঞ্জার্স এন্ডগেইমের ইভেন্টটা একটা স্যাক্রেড ইভেন্ট, অর্থাৎ স্যাক্রেড টাইমলাইনে এমনটাই হবার কথা। কিন্তু এর মাঝে লোকির টেসেরাক্ট (স্পেস স্টোন) নিয়ে পালিয়ে যাওয়াটা স্যাক্রেড না, এটা নেক্সাস। এই কারণেই লোকি সিরিজের উত্থান।

লোকি সিরিজ ফিনালেতে ক্যাং বলে যে, সব কিছুই তাঁর জানা। কোন ঘটনা কীভাবে ঘটবে এসব সম্পর্কে যে অবগত। কিন্তু ফিনালের শেষ পর্যায়ে গিয়ে সে হঠাৎ করেই বলে ওঠে, এরপর থেকে কী হবে সে নিজেও জানে না। সিলভিয়া এসব কথায় বিশ্বাস না করে ক্যাং এর মূল ভার্শনকে মেরে ফেলে। তখনই এক পর্যায়ে টাইমলাইন এলোমেলো হয়ে যেতে থাকে এবং মাল্টিভার্সের কলিশন ঘটে। লোকি তখন টিভিএ-তে গিয়ে ক্যাং এর সেই ভয়ঙ্কর ভ্যারিয়েন্টের মূর্তি দেখতে পায় এবং বুঝতে পারে মোবিয়াস তাকে চিনতে পারছে না। অর্থাৎ, এই নেক্সাস ইভেন্টের ফলে নতুন একটা টাইমলাইন ক্রিয়েট হয়েছে।

ঠিক এখান থেকেই মাল্টিভার্সের পাগলামিটা শুরু। অনেকেই ভেবেছিলো ওয়ান্ডাভিশন দিয়ে মাল্টিভার্সের সুত্রপাত ঘটবে। খেয়াল করলে দেখা যায় যে টাইম, স্পেস, রিয়ালিটি- এই তিন এর সমন্বয়ে পুরো মাল্টিভার্সের কলিশনটা হচ্ছে। ওদিকে ওয়ান্ডা, এদিকে লোকি, আর ডক্টর স্ট্রেঞ্জ। ফেইজ ফোরে তাই এই ক্যারেক্টারগুলোর দেখা আমরা বেশি পাবো।

 

 

 

এর মাঝে মার্ভেল বেশ কিছু ইস্টার এগ, ট্রিভিয়া এবং সিক্রেট মিনিং জুড়ে দেয়ায় এমসিইউ ফ্যানসরা আরো বেশি কৌতুহলি হচ্ছে। যেমন ওয়ান্ডাভিশনের ফিনালেতে ওয়ান্ডার রিয়ালিটি আউটবার্স্ট এবং লোকির ফিনালেতে মাল্টিভার্সের কলিশন- এই দুইটা ব্যাপার এপিসোড রানটাইমের একই সময় সংঘটিত হয়েছে। এদিকে স্পাইডারম্যান নো ওয়ে হোম এর টিজার ট্রেইলারে ডক্টর স্ট্রেঞ্জের কাস্ট করা স্পেলটাকেও ঐ একই সময়ে হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কিন্তু মনে হচ্ছে ব্যাপারটা নিতান্তই ইচ্ছে করেই করেছে মার্ভেল।

কারণ মার্ভেল জানে যে অডিয়েন্সরা বেশ কৌতুহলি, তাই এসব খুঁটিয়ে বের করে একটা বাড়তি হাইপ ক্রিয়েট করবে। টিভিএ- এর অবস্থান মূলত টাইমলাইনের বাইরে। এন্ড অফ টাইমও বলা চলে। সেখান থেকে বসেই “স্যাক্রেড টাইমলাইন” মনিটর এবং মেইনটাইন করা হয়। তাই লোকি ফিনালে এপিসোডের টাইমফ্রেমের সাথে ওয়ান্ডাভিশন কিংবা ডক্টর স্ট্রেঞ্জের স্পেল কাস্টের টাইমফ্রেম মিলিয়ে বানানো থিওরিটা আসলে ইনভ্যালিড।

মার্ভেল কিন্তু বরাবরই দর্শকদের থেকে কয়েক ধাপ এগিয়ে চিন্তা করে। প্রতিটা ফেইজে এর প্রমাণ মিলেছে। অ্যাভেঞ্জার্স ইনফিনিটি ওয়ার এর দ্বিতীয় ট্রেইলারে এমনভাবে ফুটেজ দেখানো হয়েছিলো যেনো মনে হয়েছে গামোরা আর টনি স্টার্কের কথোপকথন চলছে। অথচ মুভিতে দেখা গেলো, তাদের দেখাই হয়নি। টনি স্টার্ক স্পেইসে ট্রাভেল করেছে নেবুলাকে নিয়ে। এমনকি অ্যাভেঞ্জার্স এন্ডগাইমের সময় বহু ফ্যান থিওরি ঘুরে বেড়িয়েছে, যার ফলে শুধু বিভ্রান্তিই সৃষ্টি হয়েছে।

থিওরি থেকে বেড়িয়ে এসে, ফ্যাক্ট ধরে চিন্তা করুন। তাহলে ব্যাপারগুলো অনেকটা সহজ হয়ে আসবে। স্পাইডারম্যান নো ওয়ে হোম এর টিজার ট্রেইলারে দেখা গেলো, মিস্টেরিও স্পাইডারম্যানের আইডেন্টিটি রিভিল করে দেয়ার পর থেকে পিটার পার্কারের জীবন দুঃসহ হয়ে ওঠে। এর থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য ডক্টর স্ট্রেঞ্জের সাহায্য চায় পিটার। অতঃপর এমন একটা স্পেল কাস্ট করা হয় যার ফলে সবাই ভুলে যাবে যে পিটার পার্কারই হচ্ছে স্পাইডাম্যান। আর তাঁর সিক্রেট আইডেন্টিটি ফেরত আসবে।

 

 

 

এখানে উল্লেখ্য, একজন সুপারহিরোর জন্য সিক্রেট আইডেন্টিটি আসলেই দরকার। অন্তত ব্যক্তিজীবনের শান্তির জন্য হলেও। আর সেটা করতে গিয়েই স্পাইডারম্যান নো ওয়ে হোম এর ক্রাইসিস তৈরি হয়। ট্রেইলারে ওং কিন্তু নিষেধ করে বলেছিলো, এটা খুব ভয়ঙ্কর স্পেল। এটা যেন ব্যবহার না করে।

হয়তো ঐ স্পেল ক্রাইসিসের ফলেই মাল্টিভার্স ক্যারেক্টারগুলো একই টাইমলাইনে চলে এসেছে। ট্রেইলারে বেশ কিছু নস্টালজিক মোমেন্টের জন্য হাইপ গেলো আরো বেড়ে। গ্রীন গবলিনের পাম্পকিন বোম্ব দেখানো হলো। পাশাপাশি ডক্টর অক্টোপাসকে ফেরত আসতে দেখলাম আমরা। ইলেক্ট্রো এবং স্যান্ডম্যানের অ্যাম্বিয়েন্স দেখে তাদের আগমন বার্তাও পাওয়া গেলো। বাকি রইলো ভালচার, মিস্টেরিও, ক্রেভেন দ্য হান্টার। তাহলেই মার্ভেল কমিক্সের সুপারভিলেন গ্রুপ “দ্য সিন্সটার সিক্স” এর ষোলোকলা পূর্ণ হয়।

আমরা কিন্তু ইতোমধ্যেই পূর্ববর্তী মুভিগুলোর মাধ্যমে অক্টোপাস, মিস্টেরিও, গবলিনের পরিণতি জেনেছি। তাঁর মানে আমরা যে ভার্শনগুলো দেখেছি এরা সেই ভার্শন থেকে আসছে না। এরা একই ক্যারেক্টারের ভিন্ন ভ্যারিয়েন্ট। এবং মার্ভেল অরিজিনাল কাস্টের সাথে মিল রেখে তাদের রিকাস্ট করে পুরো ব্যবসায়িক ফয়দাটা লুটতে যাচ্ছে। যেহেতু প্যারালাল ইউনিভার্সের ভিলেনরা একত্রিত হবে তাই তাদের বাই প্রোডাক্ট হিসেবে আমরা হয়তো পূর্ববর্তী স্পাইডারম্যানদেরও দেখতে পাবো। ঠিক এই কারণেই শুরুতে বলেছিলাম স্পাইডারম্যান নিয়ে কথা বলার আগে মাল্টিভার্স এবং ভ্যারিয়েন্টের আলাপটা জরুরি। এই ফেইজে এই টার্মগুলো ঘুরেফিরেই আসবে।

সর্সারার সুপ্রিম হিসেবে ডক্টর স্ট্রেঞ্জের আচরণ বেশ স্ট্রেঞ্জ লেগেছে ট্রেইলারে। ফাইনাল ট্রেইলার হয়ে মুভিতে এই ব্যাপারগুলো আরো ক্লিয়ার হবে আশাকরি। এছাড়া এর মাঝে মার্ভেলের দুইটা বিগ রিলিজ আছে। শাংচি এবং ইটার্নালস। এছাড়া বর্তমানে হোয়াট ইফ সিরিজ প্রচারিত হচ্ছে। যদি রিলিজ ডেইট অপরিবর্তিত থাকে তবে হকআই, মিস মার্ভেল সিরিজও রিলিজ পাবার কথা এই বছরের শেষে। ডক্টর স্ট্রেঞ্জ ইন দ্য মাল্টিভার্স অফ ম্যাডনেস রিলিজ পাবার কথা ২০২২ সালের ২৫শে মার্চ। এই মুভিতেই মাল্টিভার্সের মূল ম্যাডনেসটা আমরা দেখতে পাবো।

এর আগে দিয়ে মার্ভেল সিনেম্যাটিক ইউনিভার্সের প্রেমেসিস সেট হচ্ছে। এবং হঠাৎ করে এই হুলুস্থুল লাগার কারণ হচ্ছে, ২০২০ সাল ছিলো এমন একটা বছর যেখানে মার্ভেলের কিছুই রিলিজ করা হয়নি করোনার কারণে। তাই সব প্রেশার এই বছরের শেষে এসে ঠেকেছে।

 

 

 

এখানেই শেষ নয়, ডক্টর স্ট্রেঞ্জ ইন দ্য মাল্টিভার্স অফ ম্যাডনেস মুভিটার পর রিলিজ পাবে থর লাভ অ্যান্ড থান্ডার। এর সাথে শেষ হবে এমসিইউ এর ফেইজ ফোর। ফেইজ ফাইভ শুরু হবে শি হাল্ক সিরিজ দিয়ে। এরপর একে একে ব্ল্যাক প্যান্থার ওয়াকান্ডা ফরএভার, ক্যাপ্টেন মার্ভেলস এর সিকুয়াল দ্য মার্ভেলস, দ্য গার্ডিয়ান অফ দ্য গ্যালাক্সি হলিডে স্পেশাল, অ্যান্টম্যান অ্যান্ড দ্য ওয়াস্প কোয়ান্টামেনিয়া, গার্ডিয়ান অফ দ্য গ্যালাক্সি ভলিউম থ্রি, ফ্যান্টাস্টিক ফোর, ব্লেড, ডেডপুল থ্রি, ক্যাপ্টেন আমেরিকা ফোর, মুননাইট সিরিজ, সিক্রেট ইনিভেশন সিরিজ, আইরনহার্ট সিরিজ, আর্মর ওয়ার সিরিজ, আই এম গ্রুট সিরিজ, ওয়াকান্ডা সিরিজ। এগুলো আপাতত কনফার্ম হয়েছে। বুঝতেই পারছেন আর কতো কী বাকি এখনো। ফ্যান থিওরিগুলো এই ব্যাপ্তিতে ধোপে টিকবে না। তাই ঐ বিভ্রান্তিতে যেতে ইচ্ছুক নই।

এদিকে আবার, সনি স্পাইডারম্যানকে দিয়ে নিজেদের সিনেম্যাটিক ইউনিভার্স ক্রিয়েট করতে চাচ্ছে। ইতোমধ্যে এটাকে তাঁরা “স্পাইডারভার্স” হিসেবে অফিশিয়ালি রিব্র্যান্ড করে ফেলেছে। সেখানে স্পাইডারম্যান, ভেনম, মর্বিয়াসসহ সনি মালিকাধীন মার্ভেল ক্যারেক্টারগুলোকে দেখা যাবে। ধীরে ধীরে এই ম্যাডনেস আরো বাড়তে থাকবে। কারণ, প্রোডাকশন হাউজগুলো বুঝে ফেলেছে এই সোর্স ম্যাটেরিয়ালের মার্কেট ভ্যালু। ইজি মানি কে-ই বা ছাড়তে চায়।

আর আমাদের সবার মধ্যেই কমবেশি এই ধারণা যে, কতোজনের কতো সুপারপাওয়ার আছে, তাই তাঁরা চাইলেই সহজ সমাধান করে দিতে পারে। কিন্তু এই ঝামেলাগুলো না হলে তো আর স্টোরি এক্সপ্যান্ড করতে পারবে না। সুপারপওয়ার থাকলেই যে সবাই সবকিছুতে এসে ইন্টারফেয়ার করবে, ব্যাপারটা এমনও না। প্রতিটা ক্যারেক্টারের প্রেক্ষাপট এবং এজেন্ডা ভিন্ন। মনোযোগ না দিলে গুলিয়ে যাবার সম্ভাবনা প্রকট।

মাল্টিভার্স বেপারটি Loki এবং Wandavision সিরিজ দিয়েই শুরু হয়ে গেছে, কিন্তু বিগ স্ক্রিনে প্রথম দেখাতে যাচ্ছে MCU। কিভাবে সেটা তারা তুলে ধরে তাই দেখার বিষয়। বেপক হাইপ ক্রিয়েট করা ট্রেইলারটি নিয়ে সবাই কথা বলছে। আমি কিছু ব্রেকডাউন পয়েন্ট নিচে তুলে ধরছি।

 

 

 

১. ট্রেইলারের শুরু হয় ফার ফ্রম হোম এর পোস্ট ক্রেডিট সিন যেখান থেকে শেষ হয় ঠিক সেখান থেকেই। আর স্পাইডার ম্যান এখন পাব্লিক এনেমি।

২.পিটার এর ইন্টেরিগেসনের সময় ব্যাকগ্রাউন্ডে দেখা ঝাপসা ক্যারেকটার আর কেউ না, আমার মতে Matt Murdok aka the DAREDEVIL..!
সে পিটার এর উকিলের ভুমিকা পালন করবে।

৩.পিটার এর নিউ ব্লাক স্পাইডার সুট এর একটা গ্লিম্পস দেখা গেছে। আমার কাছে জোশ লাগছে এই নিউ লুক।

৪. Doctor Strange এর গলায় Eye of Agamotto দেখা গেছে। যদিও আমি শিউর না সেখানে টাইম স্টোন আছে কিনা। কিন্তু মাল্টিভার্সের সিরিয়াসনেস কথা ভাবলে যেকোনো কিছুই হতে পারে।

৫. একটি সিনে দেখা যাচ্ছে Doctor strange showing off some of his powers for some reason. আমি বলতে পারছি না এটা মাল্টিভার্স কিনা অথবা তারা ফাইট করছে কিনা। it looks like a fight though.

৬. স্পাইডারম্যান চায় তার বর্তামান পরিস্থিতি পর্যালোচনায় ডক্টর স্ট্রেন্স তাকে সাহায্য করুক। একমাত্র বেস্ট অপশন হচ্ছে এমন একটি স্পেল কাস্ট করা যাতে সবাই ভুলে যাবে স্পাইডারম্যান বা  পিটারের অস্তিত্ব। পিটার রাজি হয় কিন্তু সে একইসাথে চায় কেউ কেউ তাকে মনে রাখুক অর্থাৎ তার কাছের মানুষজন। সমস্যা হচ্ছে ডক্টর স্ট্রেঞ্জ এর কথা অনুযায়ী এই স্পেলে একজন দুই ধরনের জীবন যাপন করতে পারবে না, অথচ স্পেলের সময় পিটার না করা শর্তেও বিভিন্ন কথায় ডিস্টার্ব করতে থাকে। কোনো একটা গড়মিল এখানেই হবে আর আমার মনে হয় এখান থেকেই মাল্টিভার্সের শুরু। কারন Wong তাকে ওয়ার্নিং করেছিলো এই স্পেল না করার জন্য এবং তা বিপদজনক। এবং এটাই মাল্টিভার্সেরই ইংগিত দেয়।

৭. স্পিরিট ডিফাইনিং মোমেন্ট সিন যেখানে ডক্টর স্ট্রেঞ্জ, স্পাইডার ম্যানের  soul কিছু সময়ের জন্য আলাদা করে দেয় (Ancient one did it to dr strange and hulk before) সেই মুহুর্তে Spiderman এর হাতে একটি কিউব দেখা যায়। আমার মতে এই কিউব এই মুভির সবচাইতে ইম্পরট্যান্ট এলিমেন্ট।

৮.একটি সিনে স্পাইডার ম্যান এর পেছনে কালো গ্রাওল আওয়াজ করা কিছু একটা দেখা যায়। অনেকে ভাবছে এটা VENOM । কিন্তু আমার কাছে মনে হয় এটা ভিলেন লিজার্ড। তাছাড়া Venom কে আনা সম্ভব না।

৯. সবুজ রঙ বোমা দেখে আর ব্যাকগ্রাউন্ডে সেই চিরাচরিত হাসি শুনে বলাই যায় যে সে গ্রীন গবলিন।
এছাড়া লাইটনিং দেখে বলা বোঝা যায় আছে ভিলেন ইলেক্ট্রা এবং স্যান্ড ম্যান।

১০. তবে সবচাইতে Excited ছিলাম aka the Dr. Otto Octavius কে নিয়ে। ট্রেইলারে তাকে ফুল লুকেই দেখা গেছে। বলতেই হয় যে বয়স কমানোর CGI টা ভালোই করেছে তারা।

১১. Tobbey maguire আর Andrew Garfield স্পাইডার ম্যান দেখার অপেক্ষা সবাই করেছে যদিও এই ট্রেইলারে তাদের দেখানো হয়নি। হোপ ফুলি পরবর্তী ট্রেইলারে। অন্তত সামান্য কেমিও হলেও যেনো হয় তাদের এই মুভিতে।

Sinister Six এবং মাল্টিভার্সের ভিলেন নিয়ে আমিতো অনেক excited.

Note: 

Spider Man No way Home মুভিতে ডিজিটাল প্রোডাকশন ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছেন বাংলাদেশের ভি এফ এক্স আর্টিস্ট ওয়াহিদ ইবনে রেজা।

 

 

উল্লেখ্য এর আগেও তিনি একাধিক হলিউড মুভিতে ভিএফএক্স টিমে কাজ করছেন। “Captain America: Civil War (2016)” and “Doctor Strange (2016)” of “Furious 7” (2015), “Fifty Shades of Grey” (2015), “Night at the Museum: Secret of the Tomb” (2014) HBO’s “Game of Thrones”, and “Angry Birds 2” (2019)।

হলিউডের কোন মুভিতে আমাদের বাংলাদেশের কেউ কাজ করে এটা সত্যি গর্বের বিষয়।

এবার এক নজরে দেখে নেবো মার্ভেলের আপকামিং মুভি কি কি আসছে  তার লিস্ট

Upcoming Marvel Studios’ movie list –

1. Shang-Chi and the Legend of the Ten Rings (September 3, 2021)

2. Eternals (November 5, 2021)

3. Spider-Man: No Way Home (December 17, 2021)

4. Doctor Strange in the Multiverse of Madness (March 25, 2022)

5. Thor: Love and Thunder (May 6, 2022)

6. Black Panther: Wakanda Forever (July 8, 2022)

7. The Marvels (November 11, 2022)

8. Ant-Man and the Wasp: Quantumania (February 17, 2023)

9. Guardians of the Galaxy Vol. 3 (May 5, 2023)

10. Untitled Marvel Movie 1 (MCU Fandom’s Guess: Fantastic Four) (TBA)

11. Untitled Marvel Movie 2 (MCU Fandom’s Guess: Captain America 4) (TBA)

12. Untitled Marvel Movie 3 (MCU Fandom’s Guess: Blade) (TBA)

13. Deadpool 3 (TBA)

Upcoming Marvel Studios’ series list –

1. What If…? (August 11, 2021)

2. Hawkeye (November 24, 2021)

3. Ms. Marvel (Late 2021)

4. She-Hulk (2022)

5. The Guardians of the Galaxy Holiday Special (December, 2022)

6. Moon Knight (To Be Added)

7. Secret Invasion (To Be Added)

8. Ironheart (To Be Added)

9. Armor Wars (To Be Added)

10. I am Groot (To Be Added)

[বিঃদ্রঃ করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ না হলে রিলিজ ডেট পরিবর্তিত হতে পারে]

তো আজকে এই পর্যন্তই।

সুলভ মূল্যে ডিজিএম/ডিলার/রিসেলার/রিটেইলার হয়ে রেগুলার দামের চেয়ে অনেক কম দামে সকল সিমের অফার পেতে ও বিক্রি করে অনলাইন ইনকাম করতে যোগাযোগ: Facebook Page (সীমিত সময়ের জন্য) বিস্তারিতঃ এখানে ক্লিক করুন। ট্রিকবিডি থেকে এসেছেন বললে আরো কম দামে একাউন্ট পাবেন!!!

সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন। আল্লাহ হাফেজ।

The post 🔥🔥 Spider Man: No Way Home এর টিজারের বিস্তারিত বর্ণনা ও Marvel এর আপকামিং মুভির লিস্ট দেখে নিন এক নজরে! Marvel এর ফ্যান হলে অবশ্যই দেখুন! ⚡️⚡️ appeared first on Trickbd.com.

Source:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *