আসসালামুয়ালিকুম,
কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৭৬৫জি প্রসেসর দিয়ে মাত্র ১৭ হাজার টাকায় নোকিয়া আনলো Nokia 8V 5G UW এই ডিভাইস টি।
আমেরিকার মার্কেটে এই ফোনটি লঞ্চ হয়েছিল ৭০০ ডলার অর্থাৎ বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৬০ হাজার টাকায়, কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশের প্রায় ৭০ পার্সেন্ট ডিসকাউন্ট দিয়ে এত কমে যে ফোনটি পাওয়া যাচ্ছে।
তারমানে মার্কেট ধরে রাখার নতুন টেকনিক কি তাহলে নোকিয়ার?
তো এই সবকিছু নিয়ে থাকছে বিস্তারিত রিভিউ।

১। বক্স কনটেন্ট।
মোবাইলের বক্স কন্টাক্ট এ আছে ইউজার ম্যানুয়াল, সিম ইঞ্জেক্টর। ১৮ ওয়াট এর ফাস্ট চার্জার। type-c ইউএসবি চার্জিং ক্যাবল
এবং সব শেষ Nokia 8V 5G UW ডিভাইস টি।

২.ডিজাইন এবং আউটলুক।
ডিজাইন এবং আউটলুকের কথা বলতে গেলে ৬.৮১ ইন্স অর্থাৎ প্রায় ৭ ইঞ্চি সাইজের বিশাল এই ফোনের রিয়ার প্যানেলে আছে গ্লাস প্যানেল।
সেইসাথে ডিসপ্লে তে রয়েছে গরিলা গ্লাস ৫ এর প্রটেকশন।

পাশাপাশি রিয়ার প্যানেলে গল ক্যামেরা হাউস এ রয়েছে কোয়াট ক্যামেরা সেটআপ। যার মেইন ক্যামেরা ৬৪ মেগাপিক্সেল।
তাছাড়া মোবাইলের বডি ফ্রেমে রয়েছে একটি সলিড ফিনিশিং দেয়া।

৩। কালার ভেরিয়েন্ট!
নোকিয়া এই মোবাইলটি শুধুমাত্র একটি কালার ভেরিয়েন্ট মার্কেটে লঞ্চ করেছে এবং সেই কালারটি হলো মিটিওর গ্রে।


৪। ইন হ্যান্ড ফিল।
ডিসপ্লের সাইজ হল ৬.৮১ ইঞ্চি থিকনেস হলো 8.99 মিলিমিটার। এবং ওয়েট হলো 227 গ্রাম।
ওভারঅল বিশাল সাইজ এবং ভারী এই মোবাইলটি সিঙ্গেল হ্যান্ডে ওইভাবে আসলে লং টাইম ইউজ করতে একটু প্রবলেম ফেস করতে হয়।
তবে দুই হাত দিয়ে ইউজ করতে পারবেন অনায়াসেই।

মোবাইলটির রাইট সাইডে রয়েছে ভলিউম রকার এবং পাওয়ার বাটন যেটি সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট হিসেবে কাজ করে।
এছাড়াও রয়েছে সিম কার্ড ট্রে যেটিতে একটি সিম কার্ডে পাশাপাশি এক্সটার্নাল এইচডি কার্ড ব্যবহার করা যাবে।

মোবাইলটি লেফট সাইডে রয়েছে গুগোল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর জন্য ডেডিকেটেড একটি বাটন। উপর অংশে রয়েছে নয়েজ ক্যালকুলেশন মাইক।
এবং মোবাইলটির নিচের অংশে রয়েছে মিনি স্পিকার প্রাইমারি মাইক ইউএসবি টাইপ সি চার্জিং পোর্ট এবং সবশেষে ৩.৫ এম এম হেডফোন জ্যাক।

মোবাইলে থাকা সিক্স পয়েন্ট ৮১ ইঞ্চি ডিসপ্লে টি হল আইপিএস এলসিডি প্যানেল যেটা ফুল এইচডি প্লাস সাপোর্ট করে।
ডিসপ্লের পিক্সেল দেন্সিটি হলো ৩৮৬ পিপিআই এবং তার পাশাপাশি কিন্তু ডিসপ্লে তে গরিলা গ্লাস ফাইভের প্রটেকশন আছে।
ডিসপ্লে ঠিক উপরে লেফট সাইডে রয়েছে পান্সহল সেলফি ক্যামেরা।

৫। মাল্টিটাস্কিং
এই মোবাইলটির মাল্টিটাস্কিং পারফরম্যান্সের কথা বলতে গেলে, ব্যাকগ্রাউন্ড অনেকগুলো অ্যাপ আপনি নরমালি রেখে ইউজ করতে পারবেন।
তোর সবকিছু বলতে গেলে মাল্টিটাস্কিং নিয়ে তেমন একটা প্রবলেম ফেস করতে হয় নি।

তোর মোবাইল টীর ডিসপ্লে পারফরম্যান্স সবকিছু মিলিয়ে ভালোই লেগেছে।
নরমালি আমরা day-to-day ইউজ করার সময় একটা প্রিমিয়াম ফিল পেয়েছি।


৬। নেটওয়ার্ক এন্ড কানেক্টিভিটি।
নেটওয়ার্ক এবং কানেক্টিভিটির কথা বলতে গেলে মোবাইলটিতে রয়েছে 5G সাপোর্টেড সিঙ্গেল সিম ইউজ করার অপশন। এবং তার পাশাপাশি মেমোরি কার্ড ইউজ করতে পারবেন।
এবং সবশেষে মোবাইলটিতে ওয়াইফাই ২.৪ গিগা হার্জ এবং ৫ গিগাহার্জ দুইটিই সাপোর্টেড।
আর কল করে দেখেছি কল কোয়ালিটি ফ্লাগশিপ লেভেলের পাচ্ছিলাম।
এবং সেইসাথে ফোনটিতে ইম্পর্টেন্ট সকল ফিচার ই রয়েছে।

৭। হার্ডওয়ার কনফিগারেশন।
মোবাইলটিতে রয়েছে Qualcomm Snapdragon 765G প্রসেসর এটি একটি অক্টা কোর প্রসেসর ৭ ন্যানোমিটার আর্কিটেকচার।
এবং জিপিও হিসাবে মোবাইলটিতে রয়েছে অ্যাড্রিনো ৬২০

মোবাইলটি একটি ভেরিয়েন্ট ই পাওয়া যায় সেটি হলো ৬ গিগাবাইট র্যাম এবং ৬৪ গিগাবাইট ইন্টারনাল স্টোরেজ এ যার র্যাম এর টাইপ হল lpddr4x এবং স্টরেস টাইপ হল ২.১ এবং বাংলাদেশ মার্কেটে এই ফোনটির আনঅফিসিয়াল প্রাইস হলো ১৬,৯৯০ টাকা।

স্টোরেজঃ স্পিড চেক করার সময় রেড স্পিড পেয়েছি ৭১৭ মেগাবাইট পার সেকেন্ড এবং রাইট স্পিড পেয়েছি ২১৭ মেগাবাইট পার সেকেন্ড।
আনটুটু স্কোর পেয়েছি 3 লক্ষ চুয়াত্তর হাজার 284।

মোবাইলটিতে গেম খেলার সময়।
পাবজি ফেলেছি ultra-high এইচডি গ্রাফিক্স এ হাই ফ্রেম রেটে খেলতে পেরেছি।
আর মোবাইলটিতে কোনরকম ল্যাগিং হিসু পায়নি লংটাইম গেম খেলার পরেও।
মোবাইল হটিং এর ব্যাপারে কথা বলতে গেলে খুবই কম হিট হচ্ছিল কারণ কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন 765 জি ওয়ান অফ দা বেস্ট প্রসেসর যেটা হিটিং টা কম হয়।
তাই নিঃসন্দেহে বলা যায় এটি একটি অসাধারণ প্রসেসর।

৮। ক্যামেরা সেটআপ।
ফোনটির রিয়ার প্যানেলে রয়েছে কোয়াট ক্যামেরা সেটআপ।
জারমেইন ক্যামেরা হলো 64 মেগাপিক্সেল ওয়ান পয়েন্ট এইট এপাচারের। আরেকটি ক্যামেরা হল 12 মেগাপিক্সেল এর ২.২ অ্যাপাচার এর ওয়ান টুয়েন্টি ডিগ্রী আল্ট্রা ওয়াইড ক্যামেরা।
আর বাকি ২ টি ক্যামেরা হল টু মেগাপিক্সেলের করে ২.৪ অ্যাপাচার এর মাইক্রো সেনসর ক্যামেরা এবং ডিপ সেন্সর ক্যামেরা।

৬৪ মেগা পিক্সেলের মেইন ক্যামেরা এবং ১২ মেগা পিক্সেলের আল্ট্রা ওয়াইড ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলতে অসাধারণ লাগছিল।
তার অন্যতম প্রধান কারণ হলো ক্যামেরাতে রয়েছে কার্লেস ইরেস লেন্স।
খুবই ইজিলি ফোকাস করে ছবি তোলা যাচ্ছিল। ফোকাস সিস্টেমটা মারাত্মক ভালো।
ছবির ডিটেলস অফ বেশ ভালোই ধরে রাখতে পারে। ছবি তোলার পর ছবিটি অনেকটাই ন্যাচারাল লাগছিল। এবং সেই সঙ্গে একটু মলিন ও মনে হচ্ছিল।

মেইনলি আপনারা যারা ন্যাচারাল ক্যামেরা পছন্দ করে থাকেন তাদের জন্য বেস্ট চয়েজ হবে। এই প্রাইস রেঞ্জ এর অন্যান্য যেকোনো ফোনের থেকে এটা হলফ করে বলতে পারি।

মাইক্রো সেনসর ক্যামেরা এবং ডেপ ক্যামেরা ফোকাসিং যথেষ্ট স্মুথ ভাবে করা যাচ্ছিল ডাইনামিক রেঞ্জ ও বেশ ভালোভাবে ধরে রাখতে পারছিল।
ওভারঅল টু মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা হিসেবে বেশ ভালো রেজাল্ট পেয়েছি।

মোবাইলটির মেইন ক্যামেরা 64 মেগাপিক্সেল হায়েস্ট ফোরকে ১২০ এফপিএস এ ভিডিও শুট করা যাবে। আর ভিডিও পারফরম্যান্স আমার কাছে বেশ ভালো লেগেছে। আর কারণ হলো ভিডিও থেকে সেকি সেকি ফিল আমরা পাইনি।

এবং ফোনটিতে পাবেন সুপার স্লোও মোশন এ ভিডিও রেকর্ডিং করার সুবিধা সাথে টাইমলাইন ও ইউজ করতে পারবেন।


৯। ফ্রন্ট ক্যামেরা।
সেলফি ক্যামেরা হল ২৪ মেগাপিক্সেল টু অ্যাপাচার এর সেলফি ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলে বেশ প্রিমিয়াম লেভেলের ফিল পাওয়া যাচ্ছিল।
ডায়নামিক রেঞ্জ মোটামুটি ভালই ছিল।

ছবি ডিটেইলস বেশ ভালোভাবে ধরে রাখতে পারছিল, আবারো বলছি যারা আপনারা ন্যাচারাল ছবি পছন্দ করেন তাদের কাছে অনেক অনেক ভালো লাগবে।

১০। ব্যাটারি সেকশন।
ফোনটিতে রয়েছে ৪,৫০০ মিলি এম্পিয়ার এর দুর্দান্ত ব্যাটারি, এবং সাথে রয়েছে ১৮ ওয়াট এর ফাস্ট চার্জিং সুবিধা।
কোনটি ফুল চার্জ করতে টাইম নিচ্ছিল ২ ঘন্টা প্লাস আর একবার চার্জ করার পর আপনি নির্দ্বিধায় একদিন ইউজ করতে পারবেন।
আর যদিএকটু কম ইউজ করেন তাহলে ব্যাটারি ব্যাকআপ টানা দুই দিন পাবেন।
অপারেটিং সিস্টেম হিসাবে রয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ১১

মোবাইলটির প্রশংসা যদি করতে হয় তাহলে এর গেমিং পারফরম্যান্সের প্রশংসা না করে পারলাম না। গেমিং পারফরম্যান্স পাবেন পুরাই সলিড।
এর মানে হলো আপনি গেমিং করে পয়সাটা উসুল করতে পারবেন।
যদি আপনি হেভি গেমিং করে থাকেন। তাহলে আপনার ফোনটি ইউজ করে ভালো লাগবে গেরান্টি দিলাম।
লংটাইম গেম খেললেও আপনার ফোনটা হিট হবে না এটাও একটা ভালো দিক।
মানে একেবারেই যে হিট হবে না তা না কিন্তু তুলনামূলক খুবই কম গরম হয়,

তো সর্বশেষ বলা যায় ডে টুডে ইউজ করার জন্য গেমিং করার জন্য সবকিছুতেই মোটামুটি পারফেক্ট এই ডিভাইসটিতে চাইলে কিনতেই পারেন নির্দ্বিধায়।

স্পনসর- তো এই ফোনটি সহ , গ্যালাক্সি ট্যাব A8 4GB 64 3K price এ পাবেন এই নাম্বারে কল করে 01771768114

তো বন্ধুরা রিভিউটি কেমন লাগলো জানাতে পারেন নিচের কমেন্ট সেকশনে, কোন ভুল হলে ধরিয়ে দিবেন। আমি আপনাদের প্রত্যেকটি কমেন্ট অনেক গুরুত্ব সহকারে পড়ে থাকি! আল্লাহ হাফেজ।❤

The post Nokia 8V 5G UW Bangla Review | বাইসাইকেলের দামে মোটরসাইকেল? | দেশের সেরা বাজেট কিলার। appeared first on Trickbd.com.

Source: