Telegram থেকে টাকা ইনকাম করার পাঁচটি পদ্ধতি?

Posted on

আসসালামুআলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহ। টেলিগ্রাম থেকে টাকা ইনকাম করা যতটা সহজ মনে হয় ততটাই কঠিন। যদিও এগুলো শুরু এবং সফলতার মুখে বোঝা যায়।আপনি যখন শুরুতেই কোন কাজ করতে চাইবেন কঠিন মনে হতে পারে। কিন্তু কাজ করতে করতে করতে করতে একসময় কাজটা যতটা কঠিন ছিল ঠিক ততটাই সহজ হয়ে যায়।

বর্তমান সময়ে টেলিগ্রাম নাম শুনিনি এরকম খুব কমই লোক রয়েছে। টেলিগ্রাম খুবই জনপ্রিয় একটি প্ল্যাটফর্ম। যেখানে আপনারা সম্পুর্ন ফ্রী তে চ্যাটিং এবং গ্রুপ ও চ্যানেল তৈরি করতে পারবেন। তাছাড়া আরও অনেক সুবিধা রয়েছে এই টেলিগ্রাম প্লাটফর্মে। আজকের আর্টিকেলে আমরা শিখব বা জানব যে টেলিগ্রাম থেকে টাকা ইনকাম করার পাঁচটি সেরা উপায়?

যদি আর্টিকেলটি পড়ার ইচ্ছুক থাকেন তাহলে অবশ্যই আর্টিকেলটি মন দিয়ে পড়বেন। কেননা টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম অত সহজ নয়। কিংবা ইউটিউব ফেসবুক থেকে ইনকাম এর মত টেলিগ্রাম ইনকাম,সরাসরি ইনকামের কোন মাধ্যম নেই। তাই অবশ্যই আর্টিকেল সম্পূর্ণ পড়বেন।আর কথা না বাড়িয়ে চলুন এবার মূল টিউটোরিয়ালটি শুরু করা যাক।

টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করার সেরা পাঁচটি পদ্ধতি?

টেলিগ্রাম থেকে ইনকামঃ শুরুতেই আপনাকে একে টেলিগ্রাম একাউন্ট থাকতে হবে। টেলিগ্রাম একাউন্ট তৈরি করা কোন ব্যাপারই না।প্লে স্টোর থেকে খুব সহজে আপনার ডাউনলোড করতে পারবেন এই অ্যাপ্লিকেশনটি। তারপর আপনার একটি নাম এবং ফোন নাম্বার দিয়ে খুব সহজে রেজিস্ট্রেশন করে নিতে পারবেন।

এখন হয়ে গেলে তারপর আপনাকে একটি গ্রুপ তৈরি করতে হবে। আর যদি ইনকাম এর উদ্দেশ্য গ্রুপ তৈরি করতে চান তাহলে, প্রয়োজন হবে প্রচুর পরিমাণে আপনার গ্রুপে ফলোয়ার।ফলার ব্যতীত আপনি কখনোই টেলিগ্রাম থেকে টাকা আয় করতে পারবেন না। তাই অবশ্যই আপনার ইনকাম এর উদ্দেশ্য হলে কমপক্ষে 10 হাজার ফলোয়ার আপনার গ্রুপে থাকতে হবে।

তারপর থেকেই আশা করি আপনি ইনকামের কথা চিন্তা করতে পারেন।মনে রাখা দরকার ফলোয়ার ব্যতীত টেলিগ্রাম থেকে আয় করার সরাসরি কোন মাধ্যম নেই।তা অবশ্যই আপনার গ্রুপে ফলোয়ার থাকতে হবেই ইনকাম করার জন্য। এর জন্য আপনি আপনার গ্রুপটি প্রফেশনাল ভাবে সাজিয়ে রাখবেন। এবং প্রতিনিয়ত ও মানুষের প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো আপনার গ্রুপে আপলোড করবেন। তাহলে আশা করা যায় গ্রুপটিতে মেম্বার বেড়ে যাবে। তার জন্য শেয়ার করার জরুরী।

টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করার এক নম্বর পদ্ধতি?

স্পন্সর বিজ্ঞাপনঃ স্পন্সর বিজ্ঞাপন খুবই জনপ্রিয় একটি পদ্ধতি ইনকাম করার জন্য। আপনি যদি স্পন্সর বিজ্ঞাপন আপনার টেলিগ্রামে দেখিয়ে ইনকাম করতে চান, তাহলে আপনার গ্রুপটিতে অনেক মেম্বার প্রয়োজন হবে। কম করে হলেও 10 হাজার মেম্বার আপনার গ্রুপে থাকতে হবে। তাহলে আপনারা স্পন্সর বিজ্ঞাপন দেখে টাকা আয় করতে পারবেন টেলিগ্রামে।

স্পন্সর বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য বড় একটি কোম্পানির সাথে আপনাকে যুক্ত হতে হবে। যেমন গ্রামীণফোন কোম্পানি বা বিকাশ কোম্পানি। এরকম বড় বড় কোম্পানিতে আপনাকে যুক্ত হতে হবে।এবং তাদের কাছ থেকেই আপনি স্পন্সর বিজ্ঞাপন পেতে পারেন। তাদের কাছ থেকে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য আপনি তাদের কাছে আবেদন করতে পারেন। আপনার টেলিগ্রাম গ্রুপ যদি তাদের স্বচ্ছন্দ বোধ করে তাহলে আপনাকে স্পন্সর বিজ্ঞাপন দিতে পারে।

তাদের কাছ থেকে স্পন্সর বিজ্ঞাপন গুলো তারপর থেকেই আপনারা নিতে পারবেন। তাদের বিজ্ঞাপনগুলো নেওয়ার পর আপনাকে শেয়ার করতে হবে আপনার টেলিগ্রাম গ্রুপ এ। যেখানে আপনার কমপক্ষে 10 হাজার মেম্বার রয়েছে। শেয়ার করার পর যদি কেউ বিজ্ঞাপন দেখে তাহলে আলাদা কিছু কমিশন কোম্পানি থেকে আসবে। আর যদি কেউ বিজ্ঞাপনে ক্লিক করে তাহলে তার জন্য আলাদা কিছু ইনকাম হবে। ঠিক এভাবে করেই আপনারা স্পন্সর বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টেলিগ্রামে আয় করতে পারবেন ‌।

টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করার দুই নম্বর পদ্ধতি?

রেফার শেয়ারঃ বর্তমান এই অনলাইনের যুগে অনেক অ্যাপস এবং ওয়েবসাইট রয়েছে। যেগুলো থেকে অনলাইনে ঘরে বসে টাকা আয় করা যায়।এবং অনেক অ্যাপস এবং ওয়েবসাইট রয়েছে যেখানে রেফার করে প্রচুর পরিমাণে টাকা দিয়ে থাকে তারা। তার মধ্যে একটি হলো রিং আইডি।এরকম আরো অনেক অ্যাপ্লিকেশন এবং ওয়েবসাইট রয়েছে যেখানে রেফার করে ভালো পরিমাণে টাকা দিয়ে থাকে।

এখন আপনি চাইলে এই পদ্ধতি কাজে লাগিয়ে খুব সহজে আপনার টেলিগ্রাম থেকে ইনকাম করতে পারবেন। তার জন্য আপনাকে বিশ্বস্ত কোন এপ্লিকেশন অথবা ওয়েব সাইটে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এবং ওখান থেকে আপনার রেফারেল লিংকটি শেয়ার করতে হবে আপনার টেলিগ্রাম গ্রুপ এ। তবে তার জন্য এমন ওয়েবসাইট বা অ্যাপ্লিকেশন পছন্দ করবেন যেখানে রেফার এর জন্য ভালো পরিমাণে টাকা দিয়ে থাকে।

কিংবা রেফারেল এ জয়েন করার কারণে যেন ভালো পরিমাণে কমিশন দেয়।এই ধরনের আর্নিং অ্যাপ্লিকেশন এবং ওয়েবসাইটে যুক্ত হয়েছে রেফারেল লিংক আপনি কপি করবেন। এবং বিস্তারিত বিবরণ দিয়ে আপনি আপনার টেলিগ্রাম গ্রুপ এ পাবলিশ করবেন। যাতে করে একজন মেম্বার খুব সহজেই বুঝতে পারে আপনি কি বোঝাতে চেয়েছেন। এবং আপনার শেয়ার করা ওয়েবসাইট বা অ্যাপ্লিকেশনটি তারা উপভোগ করতে চাই।

তারা যদি আপনার লিংকে ক্লিক করে রেজিস্ট্রেশন করেন তাহলে কোম্পানি থেকে আপনি কমিশন পাবেন। যদি আপনার গ্রুপে অনেক বেশি মেম্বার থাকে তাহলে অনেক বেশি রেফার পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আর এভাবে করেই আপনারা খুব সহজেই রেফার পদ্ধতি অবলম্বন করে আয় করতে পারবেন টেলিগ্রামে। আশাকরি বুঝতে পেরেছেন কিভাবে রেফার এর মাধ্যমে টেলিগ্রাম থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন সেটা!

টেলিগ্রাম থেকে টাকা ইনকাম করার তিন নম্বর পদ্ধতি?

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংঃ অনলাইনে টাকা ইনকাম করার সবচেয়ে সহজ একটি মাধ্যম হলো অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং।অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে খুব সহজে ঘরে বসে টাকা আয় করা যায়। বিভিন্ন কোম্পানি রয়েছে যেখানে আপনারা সহজেই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি কোম্পানি বা প্লাটফর্ম হল অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম।

আপনারা চাইলে এই কোম্পানিতে যুক্ত হয়ে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ঘরে বসে আয় করতে পারবেন। কোম্পানিতে যুক্ত হওয়ার জন্য আপনার ব্যক্তিগত কিছু তথ্য লাগবে। এই তথ্যগুলো দিয়ে খুব সহজেই আপনারা রেজিস্ট্রেশন করে নিতে পারবেন এই কোম্পানিতে। তারপর কোম্পানি থেকে আপনার অ্যাফিলিয়েট করার একটি লিংক দিবে।এখন আপনার কাজ হবে এই লিঙ্ক অর্থাৎ আপনার এফিলিয়েট লিংক টি মানুষের কাছে প্রচার করা।

নির্দিষ্ট কোনো গ্রাহক লিংকে ক্লিক করে তাদের কোম্পানি থেকে কোন প্রোডাক্ট বা পণ্য ক্রয় করলে, ওই কোম্পানি থেকে আপনার কমিশন আসতে থাকবে। ঠিক এভাবে করে অনলাইনে আফিলিয়েট মারকেটিং করে টাকা আয় করতে হয়। এখন এই সহজ কাজটি আপনি করতে পারেন আপনার টেলিগ্রাম এর মাধ্যমে। কারণ আপনার টেলিগ্রামের নিশ্চয়ই অনেক মেম্বার রয়েছে। আপনি তাদের কাছেও আপনার এফিলিয়েট লিংক বিস্তারিত বিবরণ দিয়ে শেয়ার করবেন।

যাতে করে একজন গ্রাহক খুব সহজে বুঝতে পারে আপনার কথাগুলো। আর যদি কেউ আপনার লিংক এর উপরে ক্লিক করে তাদের কোম্পানি থেকে কোন কিছু ক্রয় করে। তাহলে আপনার ইনকাম আসতেই থাকবে কমিশন এড করা হবে। তাই যত ভালো করে প্রচার করবেন তত আপনার লাভ।আর এই পদ্ধতি অবলম্বন করে খুব সহজেই আপনারা টেলিগ্রাম থেকে টাকা ইনকাম করতে পারছেন।আশাকরি বুঝতে পেরেছেন কিভাবে টেলিগ্রামের মাধ্যমে এফিলিয়েট মার্কেটিং করে টাকা আয় করা যায় সেটা!

টেলিগ্রামে টাকা ইনকাম করার চার নম্বর পদ্ধতি?

লিংক শর্ট করেঃ বর্তমানে অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যেখানে লিংক শর্ট করে টাকা ইনকাম করা যায়। এ রকমই কোন ওয়েবসাইট বা কোম্পানির সাথে আপনাকে যুক্ত হতে হবে। যেখানে তারা বিশ্বস্ত হবে এবং লিংক শর্ট করে টাকা দিয়ে থাকবে। এরকম কোন জনপ্রিয় বা বিশ্বস্ত প্লাটফর্মে আপনাকে যুক্ত হতে হবে। অনলাইনে লিংক শর্ট করে টাকা ইনকাম করার অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে বর্তমান সময়ে।

আপনারা চাইলে সেগুলোতে যুক্ত হয় কাজ করতে পারেন।তাদের কোম্পানিতে যুক্ত হওয়ার জন্য ছোটখাটো আপনার পার্সোনালিটি কিছু ইনফরমেশন চাইবে।এগুলো দিয়ে খুব সহজে আপনি রিলেশন করে নিতে পারবেন। তারপর আপনাকে আপনার একটি লিংক শট করতে হবে। এই কোম্পানি তখনই আপনাকে কমিশন দিবে যখন আপনার লিঙ্ক এর ওপর কেউ চাপ দিবে।অর্থাৎ লিংকে ক্লিক করলেই ওই কোম্পানি থেকে আপনি কমিশন পাবেন।

এখন এই সুযোগ আপনি কাজে লাগাতে পারেন আপনার টেলিগ্রাম গ্রুপে। কারণ আপনার টেলিগ্রাম গ্রুপ এ নিশ্চয় অনেক মেম্বার রয়েছে। ওই লিংকটি এখন আপনি আপনার টেলিগ্রাম গ্রুপে পাবলিশ করবেন। অবশ্য আপনার লিংকে ক্লিক করলে যেন তারা একটু হলেও উপকৃত হয়। এই কথা তাদের কাছে সুন্দরভাবে প্রচার করবেন। যেন কেউ ইচ্ছুক থাকলে আপনার লিঙ্গের উপরে তারা ক্লিক করবে।

আপনার গ্রুপে যত বেশি মেম্বার থাকবে ততবেশি সম্ভাবনা থাকবে লিংকে ক্লিক করার।আর যতবার আপনার লিংকে কেউ ক্লিক করবে তত আপনার কমিশন আসতেই থাকবে ওই কোম্পানি হতে। ঠিক এভাবে করে আপনারা সহজেই এই পদ্ধতি অবলম্বন করে টেলিগ্রাম থেকে আয় করতে পারবেন। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন কিভাবে লিংক শর্ট করে টেলিগ্রাম থেকে টাকা আয় করা যায় সেটা!

টেলিগ্রাম থেকে টাকা ইনকাম করার পাঁচ নম্বর পদ্ধতি?

ছবি বিক্রি করেঃ আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন ছবি বিক্রি করে টাকা আয় করা যায় অনলাইনে। এমনকি ছবি বিক্রি করে আয় করার জন্য আমি এর আগে পোস্ট করেছিলাম। ওই পোস্ট গুলো পড়লে হয়তো আপনারা বুঝতে পারবেন ছবি বিক্রি করে অনলাইনে কিভাবে টাকা আয় করা যায়। অনলাইনে ছবি বিক্রি করে টাকা আয় করার অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে।

এই ওয়েবসাইটগুলোতে আপনারা ফ্রী তে জয়েন হয়ে ছবি বিক্রি করে টাকা আয় করতে পারবেন। অনেক কোম্পানি রয়েছে যারা মাত্র একটি ছবির মূল্য সর্বোচ্চ 100 ডলার পর্যন্ত দিয়ে থাকে। সাধারণত আপনার কোন ছবি কোন গ্রাহক ক্রয় করলে কমপক্ষে 25 সেন্ট থেকে শুরু করে 10 ডলার পর্যন্ত দিয়ে থাকে। যত মূল্য হবে তার প্রায় 20 থেকে 30 শতাংশ কমিশন কোম্পানি আপনাকে দিবে।

এভাবে করে সাধারণত ছবি বিক্রি করে টাকা আয় করা যায় অনলাইনে। তবে এক এক ধরনের কম্পানি এক এক রকম হয়ে থাকে।মোটকথা আপনি এভাবেই অনলাইনে ছবি বিক্রি করে আয় করতে পারবেন। এখন এই সহজ কাজটি আপনি আপনার টেলিগ্রামে করাইতে পারেন। আপনি আপনার ছবিটির বিবরণ বিস্তারিত পোস্ট আকারে লিখে পাবলিশ করবেন টেলিগ্রাম গ্রুপে। যাতে করে একজন গ্রাহক সহজে বুঝতে পারে আপনার ছবি সম্বন্ধে।

এখন আপনার এই টেলিগ্রাম থেকে যত লোক আপনার ছবিটি ক্রয় করবে তত আপনার কমিশন আসবে ওই কোম্পানি থেকে। আর এই সহজ কাজটি এই পদ্ধতি অবলম্বন করে সহজেই আপনার টেলিগ্রাম এ আয় করতে পারবেন। আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন কিভাবে ছবি বিক্রি করে টেলিগ্রাম থেকে টাকা আয় করা যায় সেটা!

আর্টিকেল এর শেষ কথা

এতক্ষণ ধৈর্য ধরে আর্টিকেলটি পড়ার জন্য সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশাকরি আর্টিকেলটি আপনাদের একটু হলেও ভালো লেগেছে। আর্টিকেলটি যদি ভালো লাগে অবশ্যই একটা লাইক দিবেন। আর্টিকেল সম্পর্কিত কোন প্রশ্ন অথবা মতামত থাকলে কমেন্ট করে জানাবেন। পরিশেষে সবাই ভাল থাকুন সুস্থ থাকুন এবং নিরাপদে থাকুন।দেখা হবে আবার অন্য কোন আর্টিকেলে আসসালামুআলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহ।

The post Telegram থেকে টাকা ইনকাম করার পাঁচটি পদ্ধতি? appeared first on Trickbd.com.

Source:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *